আলোচনায় বার্নিকাট ও শ্রিংলা

  আরিফুজ্জামান মামুন

২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৮:৫১ | প্রিন্ট সংস্করণ

সবকিছু ঠিক থাকলে চলতি বছরের ডিসেম্বরে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। এমন একটি সময়ে ঢাকায় নতুন রাষ্ট্রদূতের নাম ঘোষণা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। ভারতও জানিয়ে দিয়েছে নতুন হাইকমিশনারের নাম। তবে নতুন কূটনীতিকরা এখনো যোগ দেননি, দায়িত্ব পালন করছেন পুরনো দুই কূটনীতিক মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্সিয়া স্টিফেনস ব্লুম বার্নিকাট এবং ভারতের হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলা।

অনেকে মনে করেন, আগামী জাতীয় নির্বাচনের আগ পর্যন্ত তারাই থাকবেন। বর্তমানে দেশের নির্বাচনী আলোচনার পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ এ দুই কূটনীতিকের বদলির বিষয়টিও আলোচনায় এসেছে।

বাংলাদেশের জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের আগে-পরে বিদেশি কূটনীতিকদের নানা রকম তৎপরতা লক্ষ করা যায়। দেশের মানুষের বিশেষ দৃষ্টি থাকে বিশ্ব-রাজনীতিতে প্রভাবশালী দেশ যুক্তরাষ্ট্র এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার রাজনীতিতে প্রভাবশালী ভারতের দৃষ্টিভঙ্গি ও ভাষ্য নিয়ে।

ঢাকায় বার্নিকাটের স্থলে পরবর্তী মার্কিন রাষ্ট্রদূত হিসেবে রবার্ট মিলারকে নিয়োগ দিয়েছে ওয়াশিংটন। বার্নিকাটের মেয়াদ ৩০ আগস্ট শেষ হয়েছে। সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, বর্তমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে তিনি আগামী জানুয়ারি পর্যন্ত ঢাকায় দায়িত্ব চালিয়ে যেতে পারেন।

অন্যদিকে ভারত তাদের কূটনৈতিক মিশনে ব্যাপক রদবদলের অংশ হিসেবে ঢাকায় হাইকমিশনার হিসেবে ইন্ডিয়ান কাউন্সিল ফর কালচারাল রিলেশনের (আইসিসিআর) মহাপরিচালক রিভা গাঙ্গুলি দাসকে হর্ষবর্ধন শ্রিংলার স্থলাভিষিক্ত করার ঘোষণা দিয়েছে। কূটনৈতিক সূত্রের খবর, এখনই বাংলাদেশ ছাড়ছেন না হর্ষবর্ধন শ্রিংলা। বাংলাদেশের আগামী সংসদ নির্বাচনের পর তিনি দায়িত্ব ছাড়বেন।

বাংলাদেশের জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে বন্ধুপ্রতিম রাষ্ট্রগুলোর কূটনীতিকদের নানা তৎপরতা পরিলক্ষিত হয়। নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক করতে এবারও বিভিন্ন ফোরামে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। প্রকাশ্যে বা অনানুষ্ঠানিকভাবে প্রতিনিধিত্বশীল সব পক্ষের মতামত নিচ্ছেন। সংবিধানের ভেতরে থেকে কীভাবে সব দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা যায় এ নিয়েও চলছে কূটনীতিকদের আলোচনা।

 

 

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে