পবিত্র আশুরা আজ

  নিজস্ব প্রতিবেদক

২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:২৫ | প্রিন্ট সংস্করণ

আজ পবিত্র আশুরা। মুসলিম উম্মাহর জন্য এক তাৎপর্যময় ও শোকাবহ দিন। সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে হিজরি ৬১ সনের ১০ মহরম হজরত মুহম্মদ (স)-এর প্রাণপ্রিয় দৌহিত্র হজরত ইমাম হোসেন (রা), তার পরিবারের সদস্য ও ঘনিষ্ঠ সহচরবৃন্দ ইয়াজিদের সৈন্যদের হাতে কারবালা প্রান্তরে শহিদ হন। এ ছাড়া এই দিনে হজরত মুসা (আ) ফেরাউনের জুলুম থেকে পরিত্রাণ লাভ করেছিলেন। এদিন অনুসারীদের নিয়ে নীল নদ পার হন তিনি। সলিল সমাধি ঘটে তাদের পশ্চাদ্ধাবনকারী ফেরাউন ও তার সৈন্যবাহিনীর।

আশুরা উপলক্ষে দুদিন রোজা পালন করার কথা বলেছেন রাসুল (স)। হজরত ইবনে আব্বাস (রা) থেকে বর্ণিতÑ রাসুল (স) মদিনায় গিয়ে ইহুদিদের আশুরার দিন রোজা রাখতে

দেখে জিজ্ঞেস করলেনÑ এই দিনে তোমরা কেন রোজা রাখ? তখন উত্তরে তারা বললÑ এটি একটি বিশেষ দিন, এই দিন আল্লাহ তায়ালা হজরত মুসা (আ) এবং তার সম্প্রদায়কে রক্ষা করে ফেরাউন ও তার বাহিনীকে নদীতে ডুবিয়ে দিয়েছিলেন। এ জন্য মুসা (আ) শুকরিয়া আদায়ে এদিন রোজা রেখেছেন, তাই আমরাও এদিনে রোজা রাখি। তখন রাসুল (স) বললেন, মুসা (আ) এর রোজা রাখার আমলটির অনুসরণের ক্ষেত্রে আমি তোমাদের থেকে বেশি হকদার। তার পর নবী কারিম (স) এদিন রোজা রাখলেন এবং সাহাবিদেরও রাখার নির্দেশ দিলেন। (মুসলিম শরিফ)।

পবিত্র আশুরার দিনে কোরআন তেলাওয়াত ও আলোচনার আয়োজন করে মহান আল্লাহর কাছে দোয়া করেন সারাবিশ্বের মুসলমানরা। যেন ইমাম হোসাইন (রা) এর শাহাদাতের বদৌলতে আল্লাহ পৃথিবীতে শান্তির শাসন প্রতিষ্ঠার ব্যবস্থা করেন।

শান্তি ও সম্প্রীতির ধর্ম ইসলামের সুমহান আদর্শ সমুন্নত রাখতে হজরত হোসেন (রা), তার পরিবার ও সহচরদের আত্মত্যাগ মানবতার ইতিহাসে সমুজ্জ্বল হয়ে আছে। কারবালার এই শোকাবহ ঘটনা ও পবিত্র আশুরার শাশ্বত বাণী আমাদের অন্যায় ও অত্যাচারের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে আজও অনুপ্রেরণা জোগায়। প্রেরণা জোগায় সত্য ও সুন্দরের পথে চলার। মুসলিমবিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও যথাযোগ্য মর্যাদায় পবিত্র আশুরা পালিত হবে। এ উপলক্ষে রাজধানী ঢাকাসহ দেশব্যাপী বিভিন্ন ধর্মীয় সংগঠন নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। পুরান ঢাকার হোসেনি দালান থেকে শিয়া সম্প্রদায়ের উদ্যোগে তাজিয়া মিছিল বের হবে। এ ছাড়া নগরের মিরপুর, মোহাম্মদপুর, পুরানা পল্টনসহ বিভিন্ন স্থান থেকে তাজিয়া মিছিল বের হওয়ার কথা রয়েছে।

পবিত্র আশুরা উপলক্ষে পৃথক পৃথক বাণী দিয়েছে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রাষ্ট্রপতি তার বাণীতে সাম্য ও ন্যায়ভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি মুসলিম উম্মাহর ঐক্য, সংহতি ও অব্যাহত অগ্রগতি কামনা করেন। প্রধানমন্ত্রী তার বাণীতে সব অন্যায় ও অবিচারের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়ে জাতীয় জীবনে সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে আশুরার মহান শিক্ষার প্রতিফলন ঘটাতে সবার প্রতি আহ্বান জানান।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে