sara

বাংলাদেশের ফাইনালে ওঠার ম্যাচ

  ক্রীড়া প্রতিবেদক

২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০৭ | প্রিন্ট সংস্করণ

পুরোনো ছবি
দেয়ালে পিঠ ঠেকে গিয়েছিল বাংলাদেশ দলের। একদম খাদের কিনারায়। সেখান থেকে দল উঠে এসেছে। সুপার ফোরে আফগানিস্তানের বিপক্ষে শেষ বলে পাওয়া শ্বাসরুদ্ধকর জয়ে আত্মবিশ্বাস ফিরে পেয়েছেন টাইগাররা।

মাশরাফিরা এখন ফাইনাল খেলার ব্যাপারে আশাবাদী। আজ পাকিস্তান-বাধা পেরোতে পারলেই এশিয়া কাপের শিরোপানির্ধারণী মঞ্চে পৌঁছে যাবেন লাল-সবুজরা। এ ম্যাচটি জিততে

মরিয়া মাশরাফি-সাকিবরা। বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের মধ্যকার অলিখিত ‘সেমিফাইনাল’ ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বেলা সাড়ে পাঁচটায়।

চ্যাম্পিয়ন হওয়ার লক্ষ্য নিয়েই এশিয়া কাপ খেলতে সংযুক্ত আরব আমিরাত যায় টাইগারার। গ্রুপপর্বে শ্রীলংকাকে হারিয়ে দারুণ সূচনাও করেছিল। এর পরই ছন্দপতন। আফগানিস্তান কাছে হেরে ‘বি’ গ্রুপের রানার্সআপ হিসেবে ওঠে সুপার ফোরে। তবে শেষ চারের শুরুতেও বিবর্ণ বাংলাদেশ। ব্যাটিং-ব্যর্থতায় ভারতের কাছে শোচনীয় হার। অবশ্য আফগানিস্তানের বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচটি জিতে ফাইনাল খেলার আশা জিইয়ে রাখেন মাশরাফিরা। সুপার ফোরে বাংলাদেশ ও পাকিস্তান দুদলই একটি করে ম্যাচ জিতেছে। সেমিফাইনাল না থাকলেও তাই এই দুদলের মধ্যকার ম্যাচটি অলিখিত সেমিতে রূপ নিয়েছে। কেননা জয়ী দল চলে যাবে ফাইনালে। পরাজিত দলের সুপার ফোর থেকেই শেষ হবে এশিয়া কাপ মিশন। শুক্রবার শিরোপানির্ধারণী ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টোডিয়ামে। বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের মধ্যকার আজকের ম্যাচের জয়ী দল ওইদিন খেলবে ভারতের বিপক্ষে।

তিন বছরেরও বেশি সময় পর বাংলাদেশ ও পাকিস্তান মুখোমুখি হচ্ছে। ৫০ ওভারের ক্রিকেটে এ দুদলের সব শেষ সাক্ষাৎ হয়েছিল ২০১৫ সালে। মাশরাফিদের জন্য মধুর স্মৃতি রয়েছে। সফরকারী পাকিস্তানকে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ করেছিল টাইগাররা। এ ম্যাচেও বাংলাদেশকেই এগিয়ে রাখতে হচ্ছে।

এশিয়া কাপের গত তিন আসরের মধ্য দুবার ফাইনাল খেলেছে বাংলাদেশ। এখন পর্যন্ত অবশ্য এই টুর্নামেন্টের একবারও শিরোপা জয়ের স্বাদ পায়নি টাইগাররা। এবার সে আক্ষেপ ঘোচাতে চান তারা। পাকিস্তান ম্যাচ জিতলেই ফাইনাল। অনুশীলনে সিরিয়াস মাশরাফি-সাকিবরা। পুরনো হিসাব-নিকাশও রয়েছে। ২০১২ সালে ঢাকায় অনুষ্ঠিত এশিয়া কাপের ফাইনালে পাকিস্তানের কাছে ২ রানে হেরে স্বপ্নভঙ্গে বেদনায় কেঁদেছিলেন সাকিবরা। আজকের ম্যাচ হয়তো ফাইনাল নয়, তার পরও এ ম্যাচটি জিতলে কিছুটা হলেও কষ্ট লাঘব হবে টাইগারদের; পাকিস্তানকে বিদায় করে দেওয়া যাবে সুপার ফোর থেকেই।

গরম দুদলের জন্যই বড় চ্যালেঞ্জ। অবশ্য গরম নিয়ে ভাবার সময় নেই। বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়দের ভাবনায় পাকিস্তান ম্যাচ। স্টিভ রোডসের শিষ্যরা নিজেদের সেরাটা দিতে চান। ২২ গজের ময়দানে জিততে মরিয়া টাইগাররা। পাকিস্তান ম্যাচে একাদশেও পরিবর্তন আসার সম্ভাবনা রয়েছে। বিশেষ করে উদ্বোধনী জুটিতে শান্তর জায়গায় সৌম্য সরকারের খেলার সম্ভাবনা প্রবল। তবে টিম ম্যানেজমেন্ট এখনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়নি। দ্বিধাদ্বন্দ্বে আছেন তারা। জানা গেছে, একটা পক্ষ চাইছেন না উদ্বোধনী জুটিতে পরিবর্তন আনতে। আজকের ম্যাচেও লিটনের সঙ্গে শান্তকে সুযোগ দিতে চান তারা। আরেকটা পক্ষ চাইছেন মহাগুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ‘সুপার ফ্লপ’ শান্তকে না খেলাতে। বরং সৌম্যকে সুযোগ দিতে চাইছেন তারা। তবে সৌম্য না শান্ত কাকে খেলানো হবেÑ এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন ম্যাচ শুরুর আগে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে