sara

নেতাদের খালেদা জিয়া

নির্বাচনে গেলেও রাজপথ দখলে রাখতে হবে

  নিজস্ব প্রতিবেদক

১৩ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ১১:৩৩ | প্রিন্ট সংস্করণ

পুরোনো ছবি
জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে নিয়ে বিএনপির নির্বাচনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত সঠিক বলে মন্তব্য করেছেন দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। নির্বাচনী পরিবেশ বিশ্ববাসীকে জানাতে সর্বোচ্চসংখ্যক বিদেশি পর্যবেক্ষক আনার লক্ষ্যে কাজ করতে দলের নীতিনির্ধারকদের নির্দেশনাও দিয়েছেন তিনি। একই সঙ্গে নির্বাচনে গেলেও রাজপথ দখলে রাখতে বলেছেন তিনি।

গতকাল সোমবার পুরান ঢাকার পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে খালেদা জিয়ার সঙ্গে বিএনপির স্থায়ী কমিটির ৫ নেতা দেখা করতে গেলে তিনি এসব নির্দেশনা দেন বলে জানা গেছে। তিনি বলেন, সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করার মাধ্যমে যার যার অবস্থান থেকে সর্বোচ্চ শক্তি প্রয়োগ করে নির্বাচন করতে হবে।

গতকাল দুপুরে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমদ, জমিরউদ্দিন সরকার ও মির্জা আব্বাস দলীয় প্রধানের সঙ্গে সাক্ষাতের জন্য কারাগারে যান। সেখানে তারা প্রায় দেড় ঘণ্টা কথা বলেন। একটি সূত্র জানিয়েছে, দলের চেয়ারপারসনের কাছে নির্বাচনের সব বিষয় তুলে ধরেন নেতারা। সংলাপের বিষয়েও তাদের মধ্যে আলোচনা হয়। এ সময় খালেদা জিয়া তাদের জানান, নির্বাচনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত ঠিক আছে। ঐক্যফ্রন্ট ও ২০-দলীয় জোটের শরিকদের সঙ্গে আলোচনা করে আসন বণ্টন করতে বলেন তিনি।

খালেদা জিয়া নেতাদের জানিয়েছেন, ৩টি আসন থেকে নির্বাচন করবেন তিনি। তার নির্বাচনে অংশগ্রহণের বিষয়ে উচ্চ আদালতে আইনি লড়াই চালানোর ব্যাপারেও আলোচনা হয়। জানা গেছে, খালেদা জিয়ার জন্য সংগ্রহ করা তিনটি আসনের মনোনয়নপত্রে স্বাক্ষর নিতে আজ মঙ্গলবার কয়েকজন আইনজীবী কারাগারে যাবেন।

সাক্ষাৎশেষে বেরিয়ে এসে বিএনপি মহাসচিব সাংবাদিকদের বলেন, চেয়ারপারসন আমাদের জন্য দোয়া করেছেন। তিনি আশা করছেন, জনগণের যে ঐক্য আমরা তৈরি করেছি, সেই ঐক্যের মধ্য দিয়ে আমরা এগিয়ে যাব।

খালেদা জিয়াকে আবারও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) স্থানান্তরের দাবি জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ম্যাডাম অসুস্থ, অত্যন্ত অসুস্থ। তার চিকিৎসা এখানে ঠিকমতো হচ্ছে না। বিএসএমএমইউ হাসপাতালে রেখে ডাক্তাররা চিকিৎসা করার যে পরামর্শ দিয়েছিল, কর্তৃপক্ষ সেই পরামর্শ গ্রাহ্য করেননি। তাকে হঠাৎ করেই কারাগারে নিয়ে আসা হয়েছে। আমরা তখনই বলেছি, এটি অমানবিক। অবিলম্বে তাকে আবার হাসপাতালে নিয়ে তার চিকিৎসার সুব্যবস্থা করার জন্য জোর দাবি জানাচ্ছি।

মির্জা ফখরুল দলীয় প্রধানের শারীরিক অবস্থার বর্ণনা দিয়ে বলেন, চার দিন তাকে থেরাপি দেওয়া হয়নি। ফলে ম্যাডামের ব্যথা আরও বেড়ে গেছে। আজকে (গতকাল) বোধহয় থেরাপিস্ট যাচ্ছেন।

বিএনপি মহাসচিব আরও বলেন, যিনি চলতে পারেন না, অসুস্থ; তাকে হুইলচেয়ারে করে আদালতে হাজির করতে হবে এবং আবার কারাগারে নিয়ে আসতে হবে! আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। অবিলম্বে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিও জানান মির্জা ফখরুল।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে