দুলু গ্রেপ্তার ভোটের আশা শেষ টুকুরও

  নিজস্ব প্রতিবেদক

১৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

রাজধানীর গুলশান থেকে সাবেক ভূমি উপমন্ত্রী এবং বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। গতকাল বুধবার সকালে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। শেরেবাংলা নগর থানার একটি মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা থাকায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এদিকে নির্বাচনী গণসংযোগের সময় ঢাকা-১ আসনের (দোহার-নবাবগঞ্জ) বিএনপির

প্রার্থী খন্দকার আবু আশফাককে আটক করে পুলিশ। পরে রাতে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) উপকমিশনার মাসুদুর রহমান রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুর গ্রেপ্তার প্রসঙ্গে বলেন, বেলা ১১টার দিকে গুলশান থেকে দুলুকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার বিরুদ্ধে শেরেবাংলা নগর থানার একটি নাশকতা মামলার ওয়ারেন্ট ছিল। গ্রেপ্তারের পর দুলুকে ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।

রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুর মেয়ে রোদেলা বলেন, গুলশানের বাসা থেকে ৬-৭ জন অস্ত্রধারী তার বাবাকে ধরে নিয়ে যায়। তারা সিভিল পোশাকে ছিল।

তার স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন ছবি বলেন, ঘুমানোর ঘর থেকে তাকে নিয়ে যাওয়া হয়। আমি অনেকবার বলেছিÑ তাকে কোথায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে, তারা কোনো কথা বলেননি।

জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শামসুুল আলম রানা বলেন, বুধবার বেলা ১১টার দিকে রাজধানীর গুলশান ২-এর ৭৭ নম্বর রোডের ১ নম্বর বাসা থেকে দুলুকে গ্রেপ্তার করা হয়। ডিবি পুলিশ পরিচয়ে তাকে আটক করে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের পর ২ ডিসেম্বর যাচাই-বাছাই করে নাটোর-২ আসনে বিএনপির প্রার্থী রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুর মনোনয়নপত্র বাতিল করেন সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তা। পরে দুলু প্রার্থিতা ফিরে পেতে নির্বাচন কমিশনে আপিল করেন। কিন্তু আপিলেও টেকেনি মনোনয়ন। শেষে প্রার্থিতা ফিরে পেতে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন বিএনপির এ প্রার্থী। সোমবার হাইকোর্ট তার প্রার্থিতা ফিরিয়ে দেন। তবে গতকাল বুধবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন সাত সদস্যের আপিল বিভাগের এক আদেশে দুলুর নির্বাচনে অংশগ্রহণের পথ বন্ধ হয়ে গেছে।

হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ সাবেক দুই বিএনপি নেতার মনোনয়নপত্র গ্রহণ করতে নির্বাচন কমিশনকে নির্দেশ দিয়েছিলেন। আরেকজন হলেন বিএনপি নেতা ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু। কিন্তু রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনে চেম্বার আদালত তা স্থগিত করে দেন। সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগ বুধবার সেই স্থগিতাদেশ চলমান রেখেছেন। ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকুর পক্ষে আপিল বিভাগে শুনানি করেন আজমালুল হোসেন কিউসি, রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুর পক্ষে ছিলেন আইনজীবী ফিদা এম কামাল। অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন।

টুকুর আইনজীবী আজমালুল হোসেন কিউসি সাংবাদিকদের বলেন, স্টে যেটি দিয়েছিলেন চেম্বার জাজ, সেটি কনটিনিউ করেন। তার মানে হলোÑ উনি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারবেন না। এই হলো আজকের আদেশ।

এদিকে গতকাল গণসংযোগের সময় ঢাকা-১ আসনের বিএনপি প্রার্থী খন্দকার আবু আশফাককে আটক করেছে পুলিশ। বিকাল ৫টার দিকে তাকে আটক করে দোহার থানাপুলিশ। পুলিশের বক্তব্য, ব্যক্তিগত নিরাপত্তার স্বার্থে তাকে থানায় নেওয়া হয়েছে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে