আওয়ামী লীগের প্রথম নির্বাচনী জনসভায় শেখ হাসিনা

স্বাধীনতাবিরোধীদের জবাব দেওয়ার আহ্বান

  আলী আসিফ শাওন ও সৈয়দ মুরাদুল ইসলাম গোপালগঞ্জ থেকে

১৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ০১:৩৫ | প্রিন্ট সংস্করণ

নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে স্বাধীনতাবিরোধীদের উপযুক্ত জবাব দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ২০২১ সালে আমরা স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালন করব। সেই সময় যেন স্বাধীনতাবিরোধী, অগ্নি সন্ত্রাসকারী, খুনি, রাজাকাররা ক্ষমতায় না আসে।

তা হলে তারা দেশ ধ্বংস করে দেবে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধ্বংস করে দেবে। আবার এ দেশ ক্ষুধার্ত হবে, অশিক্ষিত হবে, মানুষের ভাগ্য বিপর্যয় ঘটবে। এ দেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে যেন আর তারা ছিনিমিনি খেলতে না পারে সেজন্য নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে মানুষের সেবা করার সুযোগ দেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। নৌকায় ভোট দিলে কেউ বঞ্চিত হয় না।

গতকাল বুধবার বিকালে গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় শেখ লুৎফর রহমান সরকারি কলেজ মাঠে স্থানীয় উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত নিজের প্রথম নির্বাচনী জনসভায় তিনি এ আহ্বান জানান। শেখ হাসিনা গোপালগঞ্জ-৩ (টুঙ্গিপাড়া-কোটালীপাড়া) আসন থেকে নির্বাচন করছেন। এ আসনের ছয়বারের নির্বাচিত এমপি তিনি।

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, আমরা যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করেছি। জাতির পিতার হত্যাকারীদের বিচার করেছি। বাংলাদেশ আজকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় এগিয়ে যাচ্ছে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নিয়ে

বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। মুক্তিযুদ্ধবিরোধী, যুদ্ধাপরাধী, যুদ্ধাপরাধের দায়ে যাদের সাজা হয়েছে, তাদের দোসরদের আজকে যারা নির্বাচনে প্রার্থী করেছে, তাদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে স্বাধীনতাবিরোধী, স্বাধীনতার শত্রু, গণহত্যা পরিচালনাকারী, অগ্নি সন্ত্রাসকারী, মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করে যারা নির্বাচনের মাঠে নেমেছে, তাদের উপযুক্ত জবাব আপনাদের দিতে হবে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে।

কোটালীপাড়ার মাধ্যমে সারাদেশের মানুষের প্রতি আহ্বান জানিয়ে টানা দুবারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, যাকে যেখানে প্রার্থী করেছি, সেখানে নৌকা মার্কায় ভোট দিতে আহ্বান জানাচ্ছি। নৌকায় ভোট দিয়ে কেউ বঞ্চিত হয় না। আপনারা নৌকায় ভোট দিয়ে স্বাধীনতা পেয়েছেন। বাংলা ভাষায় কথা বলার অধিকার পেয়েছেন। আজ বাংলাদেশ ক্ষুধামুক্ত, খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। আজ বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ যেন এগিয়ে যেতে পারে। বিশ্বসভায় মাথা উঁচু করে যেন চলতে পারে, আমি সেই সুযোগ দেশবাসীর কাছে চাই। মা-বোনদের বলব, আপনাদের অধিকারের জন্য অনেক কিছু করে দিয়েছি। শিক্ষাদীক্ষায়, কর্মসংস্থানÑ সব দিক থেকে আপনারা এগিয়ে গেছেন। আমার এ কথাটা আপনারা সবার কাছে পৌঁছে দেবেন।

শেখ হাসিনা বক্তৃতায় কোটালীপাড়ায় তাকে হত্যার জন্য পুঁতে রাখা ৭৬ কেজি বোমার কথাও স্মরণ করেন। তিনি বলেন, এ গোপালগঞ্জের মানুষই বোমা পুঁতেছিল, আর যে কিশোর চা দোকানদার এ বোমা আবিষ্কার করেছিল সেও গোপালগঞ্জের। আমি নিশ্চিত, এ জনসভার কোথাও না কোথাও সে উপস্থিত আছে। আমি তার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই।

জনসভার সঞ্চালক বঙ্গবন্ধুর ছোট মেয়ে শেখ রেহানাকে কিছু বলার জন্য বার বার অনুরোধ জানালেও তিনি বক্তব্য রাখেননি। তিনি বলেন, আমার হয়ে আমার বড় বোন সারাদেশে বলে যাচ্ছেন। আমার আর কিছু বলার নেই। জনসভা মঞ্চে ছিলেন চিত্রনায়ক রিয়াজ ও ফেরদৌস। সাদা পাঞ্জাবির ওপর কালো মুজিব কোট পরে দুজনই বক্তব্যে নৌকায় ভোট চেয়েছেন।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুভাষচন্দ্র জয়ধরের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক এসএম হুমায়ুন কবিরের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম, ফারুক খান, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদ. যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল হক, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, ধর্ম সম্পাদক শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ, কেন্দ্রীয় সদস্য এসএম কামাল হোসেন, যুবলীগের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মোল্লা মো. আবু কাওছার, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এমদাদুল হক চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মাহবুব আলী খান, পৌর মেয়র হাজী মোহাম্মদ কামাল হোসেন, সাবেক মেয়র এইচএম ওহিদুল ইসলাম, উপজেলা চেয়ারম্যান মজিবর রহমান হাওলাদার প্রমুখ। সভামঞ্চে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ রেহানা, বঙ্গবন্ধুর ভাতিজা শেখ হেলাল ও শেখ জুয়েল এবং আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

সকাল ৮টায় গণভবন থেকে বের হয়ে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় মাওয়া হয়ে সড়কপথে টুঙ্গিপাড়ায় পৌঁছান শেখ হাসিনা। যাত্রাপথে বিভিন্ন স্থানে তাকে এক নজর দেখার জন্য দাঁড়িয়ে ছিল হাজারো জনতা। তাদের অনেকের হাতে ছিল নৌকা ও দলীয় সভাপতির ছবি। শেখ হাসিনাও গাড়ির ভেতর থেকে নেতাকর্মীদের প্রতি হাত নেড়ে শুভেচ্ছা জানান।

দুপুর ২টায় তিনি টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এর পর পরিবারের সদস্য ও দলীয় নেতাদের নিয়ে মোনাজাত করেন।

 

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে