জন্মগত ত্রুটি নির্ণয় করা যায় ১২ সপ্তাহের মধ্যেই

  নিজস্ব প্রতিবেদ ষ

১৫ নভেম্বর ২০১৭, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ফোরডি আল্ট্রাসাউন্ডের মাধ্যমে গর্ভবতী মায়েদের প্রথম ১২ সপ্তাহের ভেতরে প্রায় সব ধরনের জন্মগত ত্রুটি নির্ণয় করা যায়। এ ছাড়া ইলাস্টোস্ক্যানের মাধ্যমে থাইরয়েড ও ব্রেস্ট ক্যানসার নির্ণয় করাও খুবই সহজ, যার কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। ধানম-ির সুবাস্তু ইত্তেহাদ স্কয়ারে দি থাইরয়েড ক্যাম্পাস ও বিটমির সেন্টারে গত শনিবার এ তথ্য জানান প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান সহযোগী অধ্যাপক ডা. একেএম ফজলুল বারী। এ সময় তিনি একটি বৈজ্ঞানিক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

ডা. বারী বলেন, বাংলাদেশে অচিরেই লেজার ও রেডিও ফ্রিকুয়েন্সির মাধ্যমে গলগ- ও থাইরয়েড টিউমার চিকিৎসা শুরু হবে। আগামী মে থেকে দি থাইরয়েড সেন্টারে এ চিকিৎসা ব্যবস্থা চালু হতে যাচ্ছে। থাইরয়েড ও ব্রেস্ট স্ক্রিনিং প্রোগ্রামে মাত্র এক হাজার ২০০ টাকায় রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হবে, যা আগামী ১ ডিসেম্বর থেকে শুরু হবে।

 

বাংলাদেশে সোসাইটি অফ আল্ট্রাসনোগ্রাফির সভাপতি প্রফেসর ডা. মিজানুল হাসান বলেনÑ বিটমিরই একমাত্র প্রতিষ্ঠান, যা বাংলাদেশ সোসাইটি অব আল্ট্রাসাউন্ড (বিএসইউ) থেকে স্বীকৃতিপ্রাপ্ত। আর মা ও শিশু মৃত্যুর হার কমানোর জন্য আল্ট্রাসনোগ্রামের ভূমিকা অনস্বীকার্য।

অনুষ্ঠানে বক্ষব্যাধি রোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. ইকবাল হাসান মাহমুদ, বাংলাদেশে সোসাইটি অফ আল্ট্রাসনোগ্রাফির সভাপতি প্রফেসর ডা. মিজানুল হাসান এবং প্রসূতি ও স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. সায়বা আক্তার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এ সময় জাতীয় পর্যায়ে প্রসূতি চিকিৎসার ক্ষেত্রে অসামান্য অবদানের জন্য ‘বিটমির অ্যাওয়ার্ড’ দেওয়া হয় ডা. সায়বা আক্তারকে। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রসূতি ও স্ত্রী রোগ বিভাগের সাবেক এ অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধানের উদ্ভাবিত সায়রা ম্যাথডের জন্য লাখ লাখ প্রসূতি মা মৃত্যুর মুখ থেকে বেঁচে যাচ্ছেন। তিনি বাংলাদেশের চিকিৎসকদের একজন আইকন।

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে