বাজেট প্রস্তাবনা

উৎসে কর তুলে নেওয়ার দাবি রপ্তানিকারকদের

  নিজস্ব প্রতিবেদক

২৭ এপ্রিল ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

রপ্তানি আয়ের ওপর থেকে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে উৎসে কর সম্পূর্ণভাবে প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন রপ্তানিকারক সংগঠনগুলো। তারা জানান, রপ্তানি আয়ের ওপর থেকে ১ শতাংশ হারে উৎসে কর কেটে রাখায় তাদের আর্থিক ক্ষতি হচ্ছে। আটকে যাচ্ছে রপ্তানি আয়ের টাকা। বছর শেষের হিসাবে করের পরিমাণ কম হলেও বাড়তি টাকা ফেরত পাওয়া যায় না। একই সঙ্গে তারা করপোরেট করের হার কমানো, গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানি ব্যবহারের ওপর মূল্য সংযোজন কর বা ভ্যাট প্রত্যাহারেরও দাবি জানিয়েছেন।

জানা গেছে, আসন্ন বাজেট উপলক্ষে রপ্তানিকারকদের সংগঠনগুলো নিজ নিজ প্রস্তাব ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের কাছে পাঠায়। পরবর্তী সময় সেগুলো জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) কাছে পাঠায় এফবিসিসিআই। তাদের পাঠানো প্রস্তাব নিয়েই ব্যবসায়ীদের সঙ্গে প্রাক বাজেট আলোচনা করছে এনবিআর।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুত ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘সরকার সব উদ্যোক্তাকে এক ধরনের সুবিধা দিচ্ছে না। ইপিজেডে যারা শিল্প করেছেন তারা বেশি সুবিধা পাচ্ছেন। আর ইপিজেডের বাইরের শিল্প মালিকরা পাচ্ছেন কম সুবিধা। তাই সব খাতে একই ধরনের সুবিধা দেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।’

রপ্তানিকারকরা বলছেন, আন্তর্জাতিক বাজারে তারা নানা ধরনের প্রতিকূলতার মুখে পড়েছেন। প্রতিযোগিতা আরও বেড়েছে। এ অবস্থায় দেশে সহযোগিতা বাড়াতে হবে। বিশেষ করে শিল্পের যন্ত্রপাতি ও কাঁচামালের ওপর কিছু ক্ষেত্রে এখনো শুল্ক রয়েছে। সেগুলো তুলে দেওয়ার দাবি অনেক দিনের। রপ্তানিমুখী শিল্পগুলো বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে সেবা নিচ্ছে। এর বিপরীতে দিতে হচ্ছে ভ্যাট, যা মূল্য বাড়িয়ে দেয়। রপ্তানিমুখী প্রতিষ্ঠানগুলো স্থানীয়ভাবে কিছু কিনলে বা ব্যাংকিং সেবা নিলে এর ওপরও ভ্যাট দিতে হয়। সব মিলিয়ে দেখা যাচ্ছে, ভ্যাটের হার ১৫ শতাংশের বেশি।

সংগঠনগুলো বলেছে, বর্তমানে ক্রেতাদের চাপে এবং বাজার ধরে রাখতে কারখানার আধুনিকায়ন করতে হচ্ছে। এতে প্রচুর ব্যয় বাড়ছে। তাই এ খাতে করপোরেট করহার কমিয়ে ১০ শতাংশ করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে, বর্তমানে যা ৩০ থেকে ২৫ শতাংশ। তবে গ্রিন ফ্যাক্টরিগুলোর করহার কম।

বিজিএমইএ ছাড়াও প্রস্তাব পাঠানো সংগঠনগুলো হলো বাংলাদেশ রপ্তানিকারক সমিতি (ইএবি), বাংলাদেশ নিটওয়্যার প্রস্তুত ও রপ্তানিকারক সমিতি (বিকেএমইএ), বাংলাদেশ প্লাস্টিক দ্রব্য প্রস্তুত ও রপ্তানিকারক সমিতি।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে