শিল্পকলায় ষড়ঋতুর পদাবলি

  সাংস্কৃতিক প্রতিবেদক

০৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ঋতুচক্রের দেশ বাংলাদেশ। ছয়টি ঋতুর বিচিত্র রূপের মধ্যে এদেশের মানুষ ডুবে থাকে। সুজলা-সুফলা, শস্য-শ্যামলা এই রূপসী বাংলার প্রতিটি ঋতুই স্বতন্ত্র সৌন্দর্য নিয়ে আসে প্রকৃতিতে। ঋতুভিত্তিক এমন সব অনুসঙ্গ নিয়ে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির প্রযোজনা বিভাগ আয়োজন করেছে ‘ষড়ঋতুর পদাবলি’। গতকাল সন্ধ্যা ৬টায় একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে সংগীত, নৃত্য ও আবৃত্তি দিয়ে সাজানো হয়েছে ঋতুচক্রের এ অনুষ্ঠানটি।

অনুষ্ঠানে ছয় ঋতুর পরিবেশনায় শুরুতে ছিল গ্রীষ্ম ঋতু। এই পর্বের প্রথমেই ছিল ‘আজি নূতন রতনে ভূষণে যতনে’ দলীয় সংগীতের পরিবেশনা। এর পর ‘দোলে নাগর দোলা’ গানের সঙ্গে ছিল দলীয় নৃত্য। একক সংগীত পরিবেশনায় ছিলেন আবিদা রহমান সেতু ও মোনালীন আজাদ। বর্ষা ঋতুর পরিবেশনায় একক সংগীতে ছিলেন শারমিন আক্তার, রাফি তালুকদার ও সুচিত্রা রানী সূত্রধর। এ ছাড়াও ছিল দলীয় নৃত্য, দলীয় সংগীত ও দ্বৈত সংগীত। শরৎ ঋতুর পরিবেশনায় একক সংগীতে ছিলেন মোহনা দাস; পাশাপাশি ছিল দলীয় নৃত্য ও দলীয় সংগীত। এ পর্বে অংশ নেন একাডেমির কণ্ঠশিল্পী ও নৃত্যশিল্পীরা। এর পর হেমন্ত ও শীত ঋতুর পরিবেশনায় ছিল একক আবৃত্তি, দলীয় নৃত্য, দলীয় সংগীত ও একক সংগীত। সবশেষে বসন্ত ঋতুর পরিবেশনায় ছিল দলীয় নৃত্য, দলীয় সংগীত, দ্বৈত সংগীত ও একক সংগীত। অনুষ্ঠানটি সবার জন্য উন্মুক্ত ছিল।

৬৪ জেলায় স্বল্পদৈর্ঘ্য ও প্রামাণ্য চলচ্চিত্র উৎসব : বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির আয়োজনে ৬৪ জেলায় ‘বাংলাদেশ স্বল্পদৈর্ঘ্য ও প্রামাণ্য চলচ্চিত্র উৎসব-২০১৮’ আয়োজন করা হয়েছে। দেশি চলচ্চিত্রের বিকাশ ও উন্নয়ন এবং সুষ্ঠু ও নির্মল চলচ্চিত্র আন্দোলনের অংশ হিসেবে শিল্পকলার এ আয়োজন। আগামীকাল থেকে শুরু হচ্ছে ৮ দিনব্যাপী এ আয়োজন, চলবে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত। এ উপলক্ষে গতকাল সকালে শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার সেমিনার কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

উৎসবটির বিস্তারিত তুলে ধরেন একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী। ৮ ডিসেম্বর বিকাল ৫টায় জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনে উৎসবের উদ্বোধন করা হবে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন একাডেমির সচিব মো. বদরুল আনম ভূঁইয়া, পরিচালক ড. কাজী আসাদুজ্জামান ও জসিমউদ্দিন এবং উৎসব আয়োজক কমিটির সদস্য ও সমন্বয়কারী মাসুদ সুমনসহ একাডেমির কর্মকর্তারা।

‘বাংলাদেশ স্বল্পদৈর্ঘ্য ও প্রামাণ্য চলচ্চিত্র উৎসব-২০১৮’ উপলক্ষে গঠিত পাঁচ সদস্যবিশিষ্ট নির্বাচক কমিটির সদস্যরা উৎসবে ৪৮টি স্বল্পদৈর্ঘ্য এবং ২২টি প্রামাণ্যচিত্রসহ ৭০টি চলচ্চিত্র মনোনয়ন করেছেন। স্বল্পদৈর্ঘ্য ও প্রামাণ্য চলচ্চিত্রÑ উভয়ক্ষেত্রে পৃথকভাবে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র, শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র নির্মাতা এবং বিশেষ জুরি পুরস্কার দেওয়া হবে। পুরস্কার দেওয়ার জন্য চলচ্চিত্র নির্মাতা সৈয়দ সালাউদ্দিন জাকীকে চেয়ারম্যান করে ৫ সদস্যবিশিষ্ট একটি জুরি কমিটিও গঠন করা হয়েছে।

স্বল্পদৈর্ঘ্য ও প্রামাণ্য চলচ্চিত্রÑ উভয়ক্ষেত্রে পৃথকভাবে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রের পুরস্কারের অর্থমূল্য থাকবে ১ লাখ টাকা, শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র নির্মাতা ৫০ হাজার টাকা ও বিশেষ জুরি পুরস্কার ২৫ হাজার টাকা। আগামী ১৫ ডিসেম্বর জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনে উৎসবের সমাপনী দিনে এসব পুরস্কার ঘোষণা করা হবে এবং উৎসবে অংশগ্রহণ করা চলচ্চিত্রের নির্মাতাদের সনদ দেওয়া হবে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে