মা-ছেলে হত্যায় মুক্তার স্বীকারোক্তি করিম কারাগারে

  আদালত প্রতিবেদক

১৫ নভেম্বর ২০১৭, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

রাজধানীর কাকরাইলে মা ও ছেলেকে গলা কেটে হত্যা মামলায় নিহত শামসুন্নাহারের স্বামী আবদুল করিমের তৃতীয় স্ত্রী শারমীন আক্তার মুক্তা আদালতে দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন। অন্যদিকে দুই দফায় ১০ দিনের রিমান্ড শেষে আবদুল করিমকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

গতকাল মঙ্গলবার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রমনা থানার ইন্সপেক্টর (নিরস্ত্র) আলী হোসেন আসামি মুক্তার স্বীকারোক্তি গ্রহণের জন্য এবং করিমকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন। এ সময় দুই আসামিকে আদালতে হাজির করা হয়। পরে ঢাকা মহানগর হাকিম মোহা. আহসান হাবীব মুক্তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন এবং মহানগর হাকিম মাজহারুল হক আবদুল করিমকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

সর্বশেষ গত ১০ নভেম্বর ওই দুই আসামির ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। এর আগে গত ৩ নভেম্বর তাদের ৬ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়। এ ছাড়া মামলাটিতে গত ৯ নভেম্বর হত্যাক-ের মূল পরিকল্পনাকারী মুক্তার ভাই আল আমিন ওরফে জনি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

গত ১ নভেম্বর সন্ধ্যায় কাকরাইলের আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলাম রোডের ৭৯/এ বাড়িতে শামসুন্নাহার ও তার ছেলে শাওনকে গলা কেটে হত্যা করা হয়। ওই ঘটনায় পরদিন শামসুন্নাহারের ভাই আশরাফ আলী বাদী হয়ে একটি হত্যা করেন। মামলায় নিহতের স্বামী আবদুল করিম, তার তৃতীয় স্ত্রী শারমীন মুক্তা ও মুক্তার ভাই জনিসহ অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করা হয়।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে