সংসদে বিল উত্থাপন

বিদ্যুৎ চুরিতে ৩-৫ বছর কারাদ-

প্রকাশ | ১৫ নভেম্বর ২০১৭, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাসাবাড়ির জন্য বিদ্যুৎ চুরি করলে তিন বছর এবং বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে করলে পাঁচ বছরের কারাদ-ের বিধান রেখে বিদ্যুৎ আইন ২০১৭ বিল সংসদে উত্থাপিত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সংসদের অধিবেশনে বিলটি উত্থাপন করেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। পরে বিলটি আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য সংসদীয় কমিটিতে পাঠানো হয়।

বিলের উদ্দেশ্য ও কারণসংবলিত বিবৃতিতে বলা হয়, দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়ন অব্যাহত রাখার স্বার্থে এবং বিদ্যুতের ক্রমবর্ধমান চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে বিদ্যুৎ উৎপাদন, সঞ্চালন ও বিতরণ ব্যবস্থার উন্নয়ন ও সংস্কার সাধন এবং মানসম্মত বিদ্যুৎসেবা নিশ্চিত করার জন্য দি ইলেকট্রিসিটি অ্যাক্ট-১৯১০ রহিত করে তা সংশোধন ও পরিমার্জনক্রমে নতুন আকারে বাংলা ভাষায় বিদ্যুৎ আইন ২০১৭ শিরোনামে বিলটি প্রণীত হয়েছে।

বিলের অপরাধ ও দ- অধ্যায়ে বলা হয়েছে, কোনো বাসাবাড়িতে বা অন্য কোনো স্থানে ব্যবহারের জন্য বিদ্যুৎ চুরি করলে তিন বছরের কারাদ- বা ৫০ হাজার টাকা অর্থদ-ে দ-িত হবেন। এ ছাড়া কোনো শিল্প ও বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে বিদ্যুৎ চুরি করলে পাঁচ বছরের কারাদ- বা পাঁচ লাখ টাকা অর্থদ-ের বিধান রাখা হয়েছে।

এদিকে সংসদে জাতীয় পার্টির এমপি ফখরুল ইমাম বিলটির কয়েকটি ধারা উল্লেখ করে এটিকে কালাকানুন হিসেবে অবহিত করেন। তিনি বলেন, বিলে দেশের মালিক জনগণকে বিদ্যুৎ চুরির দায়ে কারাদ-ের বিধান রাখা হয়েছে। কিন্তু একই ঘটনায় বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মচারীদের জন্য শুধু অর্থদ-ের বিধান রাখা হয়েছে। এটা আইনের চোখে বৈষম্যমূলক।

এ ছাড়াও বিলে অননুমোদিত বিদ্যুৎ ব্যবহারের সত্যতা যাচাইয়ে তল্লাশি চালাতে সহকারী প্রকৌশলীকে দরজা ভেঙে ঘরে প্রবেশের ক্ষমতা দেওয়াকে কালাকানুন হিসেবে উল্লেখ করেন এমপি ফখরুল।