৫৭ হজ এজেন্সির বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেবে সরকার

  দুলাল হোসেন

১৩ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

গেল বছর বাংলাদেশি ৫৭টি হজ এজেন্সি মোয়াল্লেম ফি পরিশোধে গড়িমসি করায় হজ ব্যবস্থাপনায় ব্যাপক বিশৃঙ্খলা হয়। এসব এজেন্সির বিরুদ্ধে মোয়াচ্ছাছার সঙ্গে চুক্তি ভঙ্গ করা; হজযাত্রীদের অবর্ণনীয় কষ্ট দেওয়া; হজ সম্পাদনে অনিশ্চয়তা সৃষ্টি করা এবং বিদেশের মাটিতে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ করার অভিযোগ আনা হয়। এ কারণে ৫৭টি এজেন্সির বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এর আগে গত বৃহস্পতিবার অভিযুক্ত এজেন্সিগুলোকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছিল ধর্ম মন্ত্রণলয়।

এদিকে ২০১৮ সালের হজ চুক্তি করতে সৌদি আরব গেছেন ধর্মমন্ত্রীর নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল। আগামীকাল রবিবার সৌদি সরকারের সঙ্গে বাংলাদেশ সরকারের দ্বিপক্ষীয় হজচুক্তি সম্পন্ন হবে। প্রাক-নিবন্ধিত হজযাত্রী নির্ধারিত কোটা থেকে বেশি হওয়ায় অতিরিক্ত হজযাত্রীদের চলতি বছর হজ পালনের সুযোগ দিতে সৌদিকে প্রস্তাব দেবে সরকার।

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের তথ্যানুযায়ী, হজ ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্যসহ ২০১৭ সালে সরকারি ব্যবস্থাপনার ৪ হাজার ২০০ জন এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনার ১ লাখ ২৩ হাজার হজযাত্রীসহ মোট ১ লাখ ২৭ হাজার ২৯ জন বাংলাদেশি হজ পালন করতে যান। বেসরকারি হজ ব্যবস্থাপনা কার্যক্রমের সঙ্গে জড়িত রয়েছে ৬৩৫টি এজেন্সি। ২০১৭ সালে মোয়াল্লেম ফ্রি বাড়ানোর অজুহাতে অনেক হজ এজেন্সি সৌদি আরবে মোয়াল্লেমদের সঙ্গে চুক্তিসম্পন্ন করতে বিলম্ব করে। পরবর্তীতে মোয়াল্লেমের সঙ্গে চুক্তি করলেও মোয়াল্লেমদের ফি পরিশোধে গড়িমসি করেন অনেকে। এতে হজ ব্যবস্থাপনা কার্যক্রমে ব্যাপক বিশৃঙ্খলা তৈরি হয়। যেসব এজেন্সি এই অনিয়মের সঙ্গে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সহকারী সচিব (হজ) এসএম মনিরুজ্জামান স্বাক্ষরিত চিঠিতে যেসব এজেন্সির কথা উল্লেখ করা হয়েছে সেগুলো হলোÑ মেসার্স সানফ্লাওয়ার এয়ার লিংকার্স, মক্কা বাবে জান্নাত ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, সুলতানা ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, ইকোনমিক ট্রাভেলস সার্ভিস, লন্ডন এয়ার ট্রাভেলস, আল-আমানত ট্রাভেলস, আজমল ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল, জানুস ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, নিলময় ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, আমাতুন এয়ার ট্রাভেলস সার্ভিসেস, কেবি এয়ার ইন্টারন্যাশনাল, জুবিলী এয়ার ইন্টারন্যাশনাল, সিটি নিয়ন ট্রাভেলস, বিলাশ ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, সানস্টার সার্ভিসেস, শবনব এয়ার ব্রিজ, মক্কা আরাফা মদিনা গ্রুপ ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, পেনাগ ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, ঢাকা ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, এনই এয়ার সার্ভিসেস, আল-দোহা এয়ার ট্রাভেলস, মিলিনিয়াম এয়ার সার্ভিসেস, প্লেনাট ইন্টারন্যাশনাল ট্রাভেলস, আবদুল আজিজ ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরিজম, এন আল-আমিন হজ কাফেলা ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস, মদিনা ট্রাভেলস, মাস্টার এয়ার ইন্টারন্যাশনাল, মেসার্স এম নুর-ই মদিনা হজ ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, কলম্বিয়া ইন্টারন্যাশনাল ট্রাভেলস, এমআরবি ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস, ফাতেমা ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস, রিলেশন ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, সামিন ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস, এফএম ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস, সিদ্দিকীয়া ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস, এমএএম ইন্টারন্যাশনাল ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, বেস্ট ফ্লাই ইন্টারন্যাশনাল, হাবিব এয়ার ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, ফারুক ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, আল-হায়াত এভিয়েশন, মেসার্স জামান এন্টারপ্রাইজ, মার্বেলাস এয়ার ট্রাভেলস লিমিটেড, অ্যাবকো ওভারসিজ, লিমা ট্রাভেলস এজেন্সি, আল-জুবায়ের ট্রাভেলস এজেন্সি, আদিল ওভারসিজ, আল-মানার ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস, এফাজ ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস সার্ভিস, এমএইচএম ওভারসিজ, গ্রিন ইন্টারন্যাশনাল ট্রাভেলস, কারাবেল এয়ার ইন্টারন্যাশনাল, বদরপুর ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, ইকো এভিয়েশন অ্যান্ড ট্রাভেলস, এয়ার টাইমস ইন্টারন্যাশনাল, লাব্বাইক হজ সার্ভিসেস, কাজী এয়ার ইন্টারন্যাশনাল এবং এমসিও ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস।

হজচুক্তি হচ্ছে কাল

মন্ত্রণালয়ের তথ্যানুযায়ী, পবিত্র জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা সাপেক্ষে ২০১৮ সালের ২০ আগস্ট (৯ জিলহজ) পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। ২০১৮ সালে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ১০ হাজার এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১ লাখ ১৭ হাজার ১৯৮ জনসহ মোট এক লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ বাংলাদেশি হজ পালনের সুযোগ পাবেন। সরকারি পর্যায়ে প্রাক-নিবন্ধন কার্যক্রম শুরু হয় ২০১৭ সালের ১৫ জানুয়ারি থেকে এবং বেসরকারি পর্যায়ের প্রাক-নিবন্ধন কার্যক্রম শুরু হয় ১৯ ফেব্রুয়ারি থেকে। প্রাক-নিবন্ধনের শেষ দিন ৩১ ডিসেম্বর বিকাল পাঁচটা পর্যন্ত সরকারি পর্যায়ে ৬ হাজার ৫৭৭ জন এবং বেসরকারি পর্যায়ে ২ লাখ ২০ হাজার ৪৭ জন প্রাক-নিবন্ধন করেছেন। কোটার তুলনায় বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় বেশি প্রাক-নিবন্ধন করায় ২০১৮ সালে ১ লাখ ২ হাজার ৮৪৯ জন করতে পারবেন না। তারা ২০১৯ সালে হজ পালনে অগ্রাধিকার পাবেন।

ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র পাবলিক রিলেশন অফিসার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসাইন বলেন, হজযাত্রী নির্ধারণ ও হজ পালনের বিষয়ে আগামীকাল রবিবার সৌদি সরকারের সঙ্গে বাংলাদেশ সরকারের দ্বিপক্ষীয় হজচুক্তি সম্পন্ন হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে