মাঠে সক্রিয় ১৮ সম্ভাব্য প্রার্থী

  মো. রোমান আকন্দ, শরীয়তপুর

১৩ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ১৩ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:৫০ | প্রিন্ট সংস্করণ

শরীয়তপুর সদর ও জাজিরা উপজেলার দুই পৌরসভা এবং ২৩ ইউনিয়ন নিয়ে শরীয়তপুর-১ আসন। বর্তমান ভোটার দুই লাখ ৯৪ হাজার ৪৪২ জন। একাদশ সংসদ নির্বাচন নিয়ে সারা দেশের ন্যায় এ অঞ্চলেও বইছে নির্বাচনী হাওয়া। গ্রামগঞ্জে ও চায়ের দোকানে বিভিন্ন দলের সম্ভাব্য প্রার্থী নিয়ে চলছে নানা আলোচনা। বিগত দিনে এলাকার উন্নয়ন, সাধারণ মানুষের পাশাপাশি থেকে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে সম্ভাব্য প্রার্থীদের যোগাযোগ ও তাদের যোগ্যতা আলোচনায় স্থান পাচ্ছে বেশি। এ পর্যন্ত নির্বাচনী তৎপরতায় মাঠে সক্রিয় ও আলোচনায় রয়েছেন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের ১৮ মনোনয়নপ্রত্যাশী। তাদের মধ্যে আওয়ামী লীগের ৯, বিএনপির ৪, জাতীয় পার্টির ২, জাসদের ২ ও বাংলাদেশ ইসলামী আন্দোলনের ১ মনোনয়নপ্রত্যাশী রয়েছেন। অনেকেই মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। তারা নিজ নিজ দলের মনোনয়ন পেতে সব কৌশলই ব্যবহার করছেন। নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা পর্যন্ত সম্ভাব্য প্রার্থীদের তালিকা আরও দীর্ঘ হতে পারে। আর প্রার্থী মনোনয়নে বড় দুই দলেই চমক থাকতে পারে বলেও অনেকের ধারণা।

আওয়ামী লীগ: আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যে রয়েছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও বর্তমান সংসদ সদস্য বিএম মোজাম্মেল হক, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ইকবাল হোসেন অপু, শরীয়তপুরের পৌরসভার মেয়র ও ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি রফিকুল ইসলাম কোতোয়াল, সাবেক এমপি মাস্টার মজিবুর রহমান, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আবুল হাসেম তপাদার, জাজিরা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা সামসুল হক খান, জাজিরা উপজেলা চেয়ারম্যান মোবারক আলী সিকদার, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আব্দুর রব মুন্সী, ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় নেত্রী নুরজাহান আক্তার সবুজ। তাদের মধ্যে বিএম মোজাম্মেল হকের মনোনয়ন প্রায় নিশ্চিত বলে জানা যায়। তিনি তৃতীয়বারের মতো আওয়ামী লীগের আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। এর আগে ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক ও ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক। সাংগঠনিক তৎপরতা ও এমপি হিসেবে এলাকার উন্নয়নেও তার ভূমিকা দলীয় হাইকমান্ডের নজর কেড়েছে।

অপর মনোনয়ন প্রত্যাশী ইকবাল হোসেন অপু আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

বিএনপি : বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যে রয়েছেন শরীয়তপুর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সরদার একেএম নাসির উদ্দীন কালু, কৃষক দলের কেন্দ্রীয় নেতা হাজি মোজাম্মেল হক মিন্টু সওদাগর, জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলতাফ হোসেন সিকদার। এ ছাড়া দুবারের সাবেক এমপি, মুক্তিযোদ্ধা কেএম হেমায়েত উল্যাহ আওরঙ্গজেবের স্ত্রী অ্যাডভোকেট তাহমিনা আওরঙ্গও মনোনয়ন পেতে পারেন। তিনি বর্তমানে বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য। তিনিই শরীয়তপুরে বিএনপির একমাত্র সম্ভাব্য প্রার্থী, যার সমান জনপ্রিয়তা রয়েছে শরীয়তপুর-১ ও শরীয়তপুর-৩ আসনে।

জাপা : জাতীয় পার্টির মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যে আলোচনায় রয়েছেন জেলা আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট মাসুদুর রহমান ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাফর খান কালাম। সর্বশেষ দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মাসুদুর রহমান জাতীয় পার্টির প্রার্থী ছিলেন। পরে জাপা চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদের সিদ্ধান্ত মেনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করেন তিনি। এবারও তিনি মনোনয়নের ব্যাপারে আশাবাদী।

এ ছাড়া জাসদের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যে আলোচনায় রয়েছেন জেলা জাসদের সভাপতি স ম আ মালেক ও সাধারণ সম্পাদক আমির হোসেন বেপারী। সম্ভাব্য প্রার্থী বাংলাদেশ ইসলামী আন্দোলনের মাওলানা তোফায়েল আমেদ কাসেমী।

দলীয় মনোনয়নের ব্যাপারে সাংসদ বিএম মোজাম্মেল হক বলেন, এ আসনে শেখ হাসিনার সরকার গৃহীত সব উন্নয়ন কর্মকা- পর্যাপ্ত পরিমাণে করেছি। দলের সব কর্মকা- উপস্থিত থেকে সম্পন্ন করেছি। তাই এলাকার মানুষ আমার পাশে রয়েছে। তারা আবারও আমাকে চায়।

কেন্দ্রীয় নেতা ইকবাল হোসেন অপু বলেন, দলের দুঃসময়ে কাজ করেছি। সাধ্যমতো এলাকার উন্নয়ন কর্মকা-ে শরিক হয়েছি এবং সুখ-দুখে নেতাকর্মীদের পাশে রয়েছি। আশা করি ত্যাগের মূল্যায়ন হিসেবে মনোনয়ন পাব।

মেয়র রফিকুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘদিন ধরে দলের কাজ করে যাচ্ছি। মানুষের পাশে থেকে দেশরতœ শেখ হাসিনার সরকারের সেবা দিয়ে যাচ্ছি। সেবার মান আরও বাড়তে দলীয় মনোনয়ন চাই।

কৃষকদলের কেন্দ্রীয় নেতা হাজি মোজাম্মেল হক মিন্টু সওদাগর বলেন, সবসময় দলের পক্ষে কাজ করেছি ও জনগণের পাশে থেকেছি। তাই মনোনয়নের ব্যাপারে আমি আশাবাদী। দলের সিদ্ধান্তের জন্যও আমি প্রস্তুত।

সরদার একেএম নাসির উদ্দিন কালু বলেন, বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিলে আমি মনোনয়ন চাইব। আশা করি আমি মনোনয়ন পাব।

জেলা জাপার আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট মাসুদুর রহমান বলেন, দলের প্রধানের সিদ্ধান্তের জন্য আমি প্রস্তুত। দল ও জনগণের জন্য কাজ করে চলছি।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে