• অারও

সোনারগাঁওয়ে কাল থেকে শুরু মাসব্যাপী লোকজ উৎসব

  সোনারগাঁও প্রতিনিধি

১৩ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের মাসব্যাপী লোক ও কারুশিল্প মেলা ও লোকজ উৎসব আগামীকাল রবিবার থেকে শুরু। মেলা উপলক্ষে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন বলে গতকাল শুক্রবার সংবাদ সম্মেলন করে জানিয়েছেন ফাউন্ডেশনের পরিচালক কবি রবীন্দ্র গোপ। ফাউন্ডেশনের পরিচালক কবি রবীন্দ্র গোপ জানান, আবহমান গ্রাম বাংলার বিলুপ্তপ্রায় লোকজ ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে বর্তমান প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে প্রতিবছরের মতো এবারও সোনারগাঁওয়ে এ উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। এবার

গ্রামীণ লোকজ সংস্কৃতির অন্যতম মাধ্যম ‘কাঠের কারুশিল্পের প্রাচীন ঐতিহ্য ও আধুনিকতার মেলবন্ধন’ শিরোনামে বিশেষ প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে।

মেলায় প্রধান অতিথি থাকবেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। বাংলাদেশের হারিয়ে যাওয়া লোকসংস্কৃতি ও লোককারুশিল্পের নিদর্শনগুলোর সংগ্রহ, সংরক্ষণ, প্রদর্শন ও পুনরুজ্জীবনের লক্ষ্যে বাংলার প্রাচীন রাজধানী সোনারগাঁওয়ে বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে শুরু হচ্ছে এই লোকজ উৎসব।

উৎসব উপলক্ষে কারুশিল্প ফাউন্ডেশনকে সাজানো হয়েছে বর্ণিল সাজে। এ জন্য বিভিন্ন স্থানে রংবেরঙের ব্যানারে শোভা পাচ্ছে। এ ছাড়াও বিভিন্ন লোকজ প্রবাদ প্রবচন ও খনার বচন লেখা হয়েছে।

উৎসবে যেসব কারুশিল্প এবার স্থান পেয়েছে, সেগুলো হচ্ছেÑ সিলেট ও মুন্সীগঞ্জ অঞ্চলের শীতলপাটি, নওগাঁ ও মাগুরার শোলাশিল্প, রাজশাহীর শখেরহাঁড়ি ও মুখোস, ঢাকার শাখাশিল্প ও মৃতশিল্প, চট্টগ্রামের তালপাতার হাতপাখা, রংপুরের শতরঞ্জি, ঠাকুরগাঁওয়ের বাঁশের কারুশিল্প, সোনারগাঁওয়ের এক কাঠের চিত্রিত হাতি, ঘোড়া, পুতুল, কাঠের কারুশিল্প ও নকশিকাঁথা শিল্প, কুমিল্লার তামা, কাসা, রাঙামাটি, বান্দরবান ও সিলেটের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর কারুপণ্য, কিশোরগঞ্জের টেরাকোটা।

ফাউন্ডেশন সূত্রে জানা গেছে, মেলার লোকজ মঞ্চে প্রতিদিন পরিবেশন করা হবে বিভিন্ন লোকজ অনুষ্ঠানমালা। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা লোকশিল্পীরা এখানে গান পরিবেশন করবেন।

এসব পরিবেশনার মধ্যে রয়েছেÑ লোকজ নাটক, লোককাহিনির যাত্রাপালা, বাউলগান, পালাগান, কবিগান, ভাওয়াইয়া, ভাটিয়লিগান, জারিগান, সারিগান, হাছন রাজার গান, লালনগীতি, মাইজভ-ারীগান, মুর্শিদীগান, আলকাপগান, গায়ে হলুদের গান, উপজাতীয়দের অনুষ্ঠান, শরিয়ত-মারফতিগান, লোকজ কবিতা, ছড়া পাঠের আসর, পুঁথিপাঠের আসর।

এবারের লোকজ মেলায় প্রায় ১৮০টি লোকজ স্টল স্থান পেয়েছে। এগুলোর মধ্যে হস্তশিল্প ৪৫টি, পোশাকশিল্প ৪৫টি, স্টেশনারি ও কসমেটিকস ৩৪টি, খাবারের স্টল ১৬টি, মিষ্টির ১০টি ও ৩০টি স্টল কারুশিল্পপণ্য উৎপাদন-প্রদর্শনীর জন্য রাখা হয়েছে।

আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত এ মেলা চলবে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে