বজ্রপাতে স্কুলছাত্রীসহ ৭ জনের মৃত্যু

  আমাদের সময় ডেস্ক

১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:১৬ | প্রিন্ট সংস্করণ

প্রতীকী ছবি
ভাদ্র মাস শেষের দিকে। তবু আকাশের যেন রুদ্ররূপ। গত মঙ্গলবার মাগুরায় বজ্রপাতে চারজনের মৃত্যুর পর গতকাল বুধবার চার জেলায় স্কুলছাত্রী ও শ্রমিকসহ ৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে সাতক্ষীরায় ৩, সুনামগঞ্জের ছাতকে ২, গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে ১ ও নেত্রকোনার কলমাকান্দায় ১ একজন মারা যান। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরÑ

সাতক্ষীরা : কালিগঞ্জ উপজেলার চম্পাফুল বাজার এলাকায় বুধবার বিকাল ৫টার দিকে চার বান্ধবী স্কুলে প্রাইভেট পড়তে যাচ্ছিল। এ সময় বিকট শব্দে বজ্রপাত হলে তারা চারজনই দগ্ধ হয়। স্থানীয়রা তাদের আশাশুনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক দুজনকে মৃত ঘোষণা করেন। মৃতরা হলোÑকালিগঞ্জের সাইহাটি গ্রামের বিল্লাল খাঁর মেয়ে বিলকিস খাতুন (১৪), চম্পাফুল গ্রামের আকবর শেখের মেয়ে ময়না (১৪)। একই দিন বিকালে আশাশুনি উপজেলার কাপসন্ডায় বৃষ্টিপাতের মধ্যে ঘের থেকে বাড়ি ফেরার পথে বজ্রপাতে তাছের গাজী (৩০) ঘটনাস্থলেই মারা যান। তিনি ওই গ্রামের আবু বক্স গাজীর ছেলে।

ছাতক : সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলায় বুধবার সকালে সুরমা নদীতে মাছ ধরার সময় বজ্রপাতে হৃদয় দেবনাথ (১৪) নামে এক স্কুলছাত্রের মৃত্যু হয়। সে উপজেলা নোয়ারাই ইউনিয়নের জয়নগর গ্রামের লুলু দেবনাথের ছেলে। একই সময় নদীতে বালু উত্তোলনের সময় বজ্রপাতে মামুন মিয়া (২৮) নামে এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়। তিনি পিরোজপুর জেলার মঠবাড়িয়া উপজেলার তাপালবাড়ী গ্রামের মৃত আইনুল হকের ছেলে।

পলাশবাড়ী : গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার সদর ইউনিয়নের জামালপুর গ্রামে বুধবার দুপুরে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টিপাতের মধ্যে ডোবায় মাছ ধরার সময় বজ্রপাতে ফয়সাল ম-ল (১৪) নামে এক স্কুলছাত্রের মৃত্যু হয়। সে ওই গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে এবং পলাশবাড়ী স্টুডেন্ট কেয়ার স্কুল অ্যান্ড কলেজের ছাত্র।

কলমাকান্দা : নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলার রংছাতী ইউনিয়নের মুন্সীপুর গ্রামে বুধবার দুপুরে বৃষ্টিপাতের মধ্যে মাঠে ফুটবল খেলার সময় বজ্রপাতে আজিজুল হক (১০) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়। সে মুন্সীপুর গ্রামের মৃত আবদুুল জব্বারের ছেলে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে