প্রেমের ফাঁদে ফেলে হত্যাই তার নেশা!

  সজল ছত্রী, সিলেট

২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৮:৫৯ | প্রিন্ট সংস্করণ

সিলেট জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে গতকাল হাজির করা হলে ৩২ বছরের শফিককে দেখাচ্ছিল নির্বিকার। অনেকটা নিরীহগোছের তরুণ! আদতে সেই চেহারার আড়ালে এক ভয়ঙ্কর খুনি, গণধর্ষণ মামলারও পলাতক আসামি। গত ১০ সেপ্টেম্বর সিলেটের বিশ্বনাথে অজ্ঞাত কিশোরীর লাশ উদ্ধারের সূত্র ধরেই মূলত পুলিশ তার সন্ধান পায়।

পুলিশ জানায়, প্রেমের ফাঁদে ফেলে রুমি নামের কিশোরীকে টাঙ্গাইল থেকে সিলেটে এনে ধর্ষণ ও হত্যা করা হয়। এর আগেও একই এলাকা থেকে আরেকটি কিশোরীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তার পরিচয় এখনো জানা যায়নি। সেটিও শফিকের কাজ বলে পুলিশের ধারণা। ধারাবাহিকভাবে একই কায়দায় হত্যার ঘটনা গোপনে তদন্ত শুরু করা হয়। নিহত রুমির শরীরের একটি অস্ত্রোপচারের চিহ্ন এবং সঙ্গে থাকা মোবাইল নম্বরের সূত্র ধরে শফিকের সন্ধান পাওয়া যায়।

সংবাদ সম্মেলনে সিলেটের পুলিশ সুপার মো. মনিরুজ্জামান জানান, শফিক সিলেটের বিশ্বনাথের রামচন্দ্রপুর গ্রামের ওয়াব উল্লার ছেলে। পলাতক থেকেই চারটি বিয়ে করা শফিক আরও কয়েকটি ধর্ষণ, গণধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ডের হোতা। বিকৃত রুচির তরুণ শফিকের নামে বিশ্বনাথ থানায় গণধর্ষণের মামলা থাকায় পলাতক থেকে সে দেশের বিভিন্ন জায়গায় প্রেমের ফাঁদ পেতে ধর্ষণ ও খুন করত। সর্বশেষ গত ১০ সেপ্টেম্বর টাঙ্গাইল থেকে রুমি আক্তারকে বিশ্বনাথে এনে হত্যা করে সে টাঙ্গাইল ফিরে যায়। তদন্ত ও প্রযুক্তির সহায়তায় গত মঙ্গলবার তাকে টাঙ্গাইল থেকে আটক করতে সক্ষম হয় পুলিশ। পলাতক থাকা অবস্থায় শফিক সেখানকার নাসির গ্লাস ফ্যাক্টরিতে কাজ করত।

পুলিশ সুপার জানান, গত ৯ সেপ্টেম্বর টাঙ্গাইলের কুমুদিনী হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন মির্জাপুর থানার আতাউর রহমানের মেয়ে রুমি আক্তার। একই হাসপাতালে শফিকের শাশুড়িও চিকিৎসাধীন ছিলেন। সেখানেই তাদের পরিচয় হয়। একপর্যায়ে প্রেমের অভিনয় করে ওই কিশোরীকে সিলেট নিয়ে আসে শফিক। এর পর তাকে ধর্ষণের পর হত্যা করে। রুমিকে হত্যার দৃশ্য শফিকের এক ভাবি দেখে ফেলেন বলেও জানান এসপি। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ঘাতক তরুণও হত্যার কথা স্বীকার করেছে।

তবে আরও তথ্য জানার জন্য বৃহস্পতিবার শফিককে আদালতে তুলে রিমান্ড চাওয়া হবে বলে জানান পুলিশ সুপার। এ ঘটনায় তদন্তের স্বার্থে এ পর্যন্ত পুলিশ হেফাজতে রয়েছেন ১৪ জন।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে