রাজধানীতে সড়ক দুর্ঘটনা

কদিনের ছুটি নিয়ে চিরছুটিতে আতিকুল

  নিজস্ব প্রতিবেদক

১৯ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ১৯ অক্টোবর ২০১৮, ০৮:৫১ | প্রিন্ট সংস্করণ

ময়মনসিংহে গ্রামের বাড়িতে যাওয়ার জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে কদিনের ছুটি নিয়েছিল রাজধানীতে পড়তে আসা আতিকুল। ১১ বছরের দুরন্ত ছেলেটি বাড়িতে গিয়ে পুকুরে মাছ ধরবে, বন্ধুদের সঙ্গে খেলবে এমন কত পরিকল্পনার কথা বলেছিল সহপাঠীদের। কিন্তু কে জানত, একেবারেই ছুটি মিলবে তার। বেপরোয়া বাসের ধাক্কায় সহপাঠীদের চোখের সামনেই দুর্ঘটনার শিকার হয় আতিকুল। অবশেষে চিরছুটি পেয়ে মা-বাবার কোলে লাশ হয়ে ফিরল তাদের প্রিয় সন্তান।

গতকাল সকাল পৌনে ৭টার দিকে রাজধানীর ভাটারা এলাকায় নর্দা ফুটওভারব্রিজের নিচে বাসের ধাক্কায় নিহত হয় আতিকুল ইসলাম। সে ময়মনসিংহের তারাকান্দা উপজেলার পাগলী গ্রামের মো. শহিদুল্লাহর ছেলে। ভাটারা পূর্ব নয়ানগর হাজি আব্দুর সাত্তার মাদ্রাসার নুরানি বিভাগের ছাত্র ছিল আতিকুল। একই মাদ্রাসায় হেফজ বিভাগে অধ্যয়নরত নিহতের বড় ভাই আমানউল্লাহ এসব তথ্য জানান। রাতে এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পুলিশ ঘাতক বাসটিকে আটক করতে পারেনি।

জানা যায়, অনেক বলে কয়ে মাদ্রাসা থেকে কদিনের ছুটি নিয়েছিল আতিকুল ও তার বন্ধুরা। গতকাল ভোরে আতিকুলসহ ১০-১২ শিক্ষার্থী নিজেদের গ্রামের উদ্দেশে রওনা দেয়। নর্দায় বাসে ওঠার জন্য হেঁটে দলবেঁধে যাচ্ছিল তারা। নর্দা ফুটওভারব্রিজের নিচে রাস্তা পারাপারের সময় হঠাৎ নতুনবাজারগামী বেপরোয়া গতির একটি বাস আতিকুলকে ধাক্কা দেয়। এ সময় গুরুতর আহত হলে আশঙ্কাজনক অবস্থায় আতিকুলকে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়। অবস্থার অবনতি হলে তাকে স্থানান্তর করা হয় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে। সকাল ১০টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক আতিকুলকে মৃত ঘোষণা করেন।

ভাটারা থানার ওসি মো. কামরুজ্জামান জানান, ঢামেক হাসপাতালে ময়নাতদন্তের পর আতিকুলের লাশ তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। ঘাতক বাসটি আটকের চেষ্টা চলছে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে