বিভিন্ন স্থানে নির্বাচনী সংঘর্ষ-গুলি, আহত ৬৭

আ.লীগে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বে পাঁচ জনকে কুপিয়ে জখম # তিন জেলায় বিএনপির প্রচারে বাধার অভিযোগ গ্রেপ্তার ১৫

  আমাদের সময় ডেস্ক

১১ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ১১ ডিসেম্বর ২০১৮, ১০:২৪ | প্রিন্ট সংস্করণ

ফাইল ছবি
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রতীক বরাদ্দের দিনেই তিন জেলায় প্রধান দুই রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে নির্বাচনী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার দুরমুঠ বাজারে গতকাল মাজার জিয়ারত নিয়ে দু দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষে ১৫ জন আহত হন। নাটোরের লালপুরে নাটোর-১ আসনে বিএনপি জোটের প্রার্থী মনজুরুল ইসলাম বিমলের গাড়িতে দুর্বৃত্তদের হামলায় আহত হন মনজুরুল ইসলাম বিমলসহ তিনজন।

সিরাজগঞ্জে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির কর্মীদের সংঘর্ষে উভয়পক্ষের ৭ জন আহত হন। চট্টগ্রামের ফটিকছড়িতে গতকাল রাতে মহাজোট মনোনীত প্রার্থী এবং আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে সাতজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। এ ছাড়া আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বে মেহেরপুর ও পীরগঞ্জে সংঘর্ষে ৫ জন আহত হয়েছেন। অন্যদিকে বিএনপির ভোটের প্রচারে বাধা দেওয়ায় তিন জেলায় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে ৩০ জন আহত হয়েছেন। নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

জামালপুর : মেলান্দহে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী বিএনপির মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল ধানের শীষ বরাদ্দ পেয়ে হজরত শাহ কামালের (র) মাজার জিয়ারত করতে যান। এ সময় আওয়ামী লীগের কর্মীরা বাধা দিলে দুপক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টাধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়। এতে ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা সৈয়দ খালেকুজ্জামান জুবেরীসহ উভয়পক্ষের ১৫ জন আহত হন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বিএনপির প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল বলেন, মাজারের প্রবেশপথে পেছন থেকে আওয়ামী লীগের ক্যাডাররা হামলা চালিয়ে কমপক্ষে আমার ১০ কর্মী-সমর্থককে আহত করে।

এ ব্যাপারে দুরমুঠ ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা সৈয়দ খালেকুজ্জামান জুবেরী বলেন, বিনা উসকানিতে বিএনপির প্রার্থীর বহর থেকে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীর ওপর হামলা চালানো হয়।

নাটোর : নাটোর-১ আসনে বিএনপি জোটের প্রার্থী মনজুরুল ইসলাম বিমল কয়েকজন কর্মী নিয়ে মাইক্রোবাসে লালপুরের একটি জানাজায় অংশ নিতে যাচ্ছিলেন। তাদের বহনকারী মাইক্রোবাস লালপুর ত্রিমোহনীর স্কুলগেটের কাছে পৌঁছলে হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। হামলাকারীরা মাইক্রোবাসটিতে ব্যাপক ভাঙচুর করে। তারা মনজুরুল ইসলাম বিমল ও তার কর্মীদের বেধড়ক পেটায়। পরে আশপাশের লোকজনের সহায়তায় তাদের লালপুর ফিলিং স্টেশনে নিয়ে আসা হয়। গোপালপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে তিনি ভর্তি হন বলে জানা যায়।

আহত কর্মী ইসমাইল হোসেন মোবাইলে জানান, তাদের ওপর অতর্কিত হামলা চালানো হয়। হামলাকারীদের দেখলে তারা চিনতে পারবেন। ঘটনার জন্য প্রার্থী মনজুরুল ইসলাম বিমল আওয়ামী লীগ কর্মীদের দায়ী করে বলেন, আমি অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গেছি। একটা জানাজায় অংশ নিতে যাচ্ছিলাম। ভাবতেও পারিনি এ অবস্থায় হামলা চালানো হবে। ঘটনাটি পুলিশ সুপারকে জানানো হয়েছে। একই আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী শহীদুল ইসলাম বকুল জানান, এ হামলায় আওয়ামী লীগের কেউ জড়িত নয়। দলীয় কোন্দলের জের ধরেই এ হামলা হতে পারে বলে তিনি মনে করেন।

লালপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম জানান, ঘটনাটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

সিরাজগঞ্জ : সদর উপজেলার চক শিয়ালকোল, সারটিয়া ও ধুকুরিয়ায় সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগ-বিএনপি সংঘর্ষে উভয়পক্ষে ৫ নেতাকর্মী আহত হন। জানা যায়, হাইকোর্টের রায়ে সিরাজগঞ্জ-২ আসনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকুর মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণার খবরে নিজ এলাকা চক শিয়ালকোল এলজিইডি মোড়ে বিএনপির নেতাকর্মীরা মিছিল করছিল। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা সেই মিছিলে হামলা চালালে সংঘর্ষ হয়। এতে ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম চার্লি, বিএনপি কর্মী শফিকুল ইসলাম, রেজাউল কামরুল পান্নাসহ ৫ জন আহত হন।

একই সময় উত্তর সারটিয়া ও ধুকুরিয়ায় বিএনপির নেতাকর্মীরা মিছিল বের করলে আওয়ামী লীগকর্মীরা বাধা দেয়। এতে সংঘর্ষ বাধে। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা ছানোয়ার হোসেন ছানু আহত হন। এ ছাড়া শিয়ালকোলে আরেক হামলায় আহত হন ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক নুর-ই আলম। একই সময় স্থানীয় বিএনপি নেতা জিব্রাইলের বাড়িঘরও ভাঙচুর করা হয়।

সিরাজগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ দাউদ জানান, এ ব্যাপারে তার কাছে অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আ.লীগের অভ্যন্তরীণ বিরোধে গাংনীতে ৫ জনকে কুপিয়ে জখম, পীরগঞ্জে হামলা : অভ্যন্তরীণ বিরোধের জেরে মেহেরপুরের গাংনীর দুর্লভপুরে আওয়ামী লীগের একপক্ষের হামলায় অপরপক্ষের ৫ জন আহত হন। গতকাল সোমবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের মধ্যে চার জনকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে এবং অন্য জনকে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। মেহেরপুর ও পীরগঞ্জ প্রতিনিধি এ তথ্য জানান।

এদিকে ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলা শহরে ঠাকুরগাঁও-৩ আসনে মহাজোটের প্রার্থী ওয়ার্কার্স পার্টির নেতা ইয়াসিন আলীর পক্ষে প্রচারকালে স্বতন্ত্র প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতা ইমদাদুল হকের সমর্থকরা হামলা চালায়। বিকাল ৫টায় পীরগঞ্জ শহরের পশ্চিম বাসস্ট্যান্ডে এ ঘটনা ঘটে। হামলায় পীরগঞ্জ উপজেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি আবু জাহেদ ইবনে জুয়েল আহত হন। এ সময় পীরগঞ্জ থানার ওসি বজলুর রশিদ সংবাদকর্মীদের হামলার ছবি তুলতে বাধা দেন। এতে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন সংবাদকর্মীরা। তারা ওসির অপসারণও দাবি করেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গাংনী উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি দুর্লভপুর গ্রামের বাসিন্দা তৌহিদুল ইসলাম ও দুর্লভপুর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি হায়দার আলী পক্ষের মধ্যে দীর্ঘদিনের বিরোধ রয়েছে। নির্বাচন নিয়ে দুপক্ষের মধ্যে তিন দিন ধরে উত্তেজনা বিরাজ করছিল। এর জেরে গতকাল গ্রামের আশরাফুল ইসলামের চায়ের দোকানে হায়দার পক্ষের লোকজনের ওপর হামলায় চালায় তৌহিদের পক্ষের লোকজন। তারা প্রতিপক্ষকে রামদা দিয়ে কোপায়। এতে ৫ জন গুরুতর জখম হন। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠায়। সেখান থেকে উসমান গনি, আবদুর রাজ্জাক, আজমত আলী ও এনামুলকে কুষ্টিয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়। জিয়া উদ্দীন নামের একজনকে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রাখা হয়েছে।

গাংনী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হরেন্দ্রনাথ সরকার বলেন, বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। হামলাকারীদের আটকের চেষ্টা চলছে।

এদিকে ঠাকুরগাঁও-৩ আসনে মহাজোটের প্রার্থীর পক্ষে প্রচারকালে হামলা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে স্বতন্ত্র প্রার্থী ইমদাদুল হক বলেন, আমরা পীরগঞ্জে ছিলাম না। এটি নিছক পাতানো খেলা। আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ বা অঙ্গসংগঠনের কেউ এ ধরনের ঘটনার সঙ্গে জড়িত নয়।

তিন জেলায় বিএনপির প্রচারে পুলিশের বাধা, সংঘর্ষে আহত ৩০ : নির্বাচনী প্রচারের প্রথম দিন খুলনা, চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ ও শেরপুরের শ্রীবরদীতে দলীয় প্রার্থীদের পুলিশ প্রচার চালাতে দেয়নি বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির নেতারা। এতে ৩০ জন আহত হন। চট্টগ্রাম-৪ (সীতাকু-) আসনে বিএনপির প্রার্থী ইসহাক কাদের চৌধুরীর নির্বাচনী সভা থেকে দলীয় ১৫ নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়।

খুলনা : নগরীর কেডি ঘোষ রোডের দলীয় কার্যালয়ে দোয়া মাহফিল শেষ করে খুলনা-২ আসনে বিএনপির প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু ও খুলনা-৩ আসনের প্রার্থী রকিবুল ইসলাম বকুল মিছিলসহকারে নেতাকর্মীদের নিয়ে প্রচার শুরু করেন। কিন্তু দলীয় কার্যালয়ের অদূরে খুলনা সদর থানার মোড়ে তাদের মিছিলের গতি রোধ করে পুলিশ। এ সময় পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়, দুপুর ২টার পরে প্রচার মিছিল বের করতে পারবে। বেশকিছু সময় মিছিলটি থমকে থাকার পর বিএনপি নেতাকর্মীরা ফের দলীয় কার্যালয়ে ফিরে যান।

অবশ্য সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির জানান, বিশৃঙ্খলা এড়াতেই বিএনপি নেতাকর্মীদের মিছিল বন্ধ রাখতে অনুরোধ করা হয়।

শ্রীবরদী : শেরপুর-৩ (শ্রীবরদী-ঝিনাইগাতী) আসনে বিএনপির প্রার্থী মাহমুদুল হক রুবেল শ্রীবরদী উপজেলার খড়িয়া কাজিরচর ইউনিয়নের লংগরপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে প্রথম নির্বাচনী পথসভা আহ্বান করে। বিকালে স্থানীয় যুবলীগের পক্ষে পাল্টা সভা আহ্বান করলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বিকাল ৩টায় সভাস্থানে অবস্থান নেয়। পরে ধানের শীষের পক্ষে বিভিন্ন ওয়ার্ড থেকে মিছিল আসতে শুরু করলে পুলিশ সভা করতে নিষেধ করে। এতে নেতাকর্মী ও সমর্থকদের নিয়ে মাহমুদুল হক লংগরপাড়া-শ্রীবরদী সড়কে মিছিল করেন এবং স্থান ত্যাগ করেন। মাহমুদুল হক জানান, বিষয়টি সহকারী রিটার্নিং অফিসারকে লিখিতভাবে জানানো হবে।

এ ব্যাপারে শ্রীবরদী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোতাহারুল ইসলাম লিটন জানান, স্থানীয় যুবলীগ আগে থেকেই সমাবেশ ডাকলেও বিএনপির প্রার্থী একই স্থানে সভা আহ্বান করে। সে কারণে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়েছে।

এ বিষয়ে সহকারী রিটার্নিং অফিসার সেঁজুতি ধর জানান, আমি শুনেছি রুবেল সাহেব আমার কাছে একটি তালিকা দিয়েছেন, কিন্তু জেলায় মিটিং থাকায় আমি তা দেখিনি। একই স্থানে দুই দল সভা আহ্বান করায় আমরা উভয় দলকেই সভা না করতে বলেছি। তবে পুলিশ বলছে, তারা সমাবশে কোনো বাধা দেননি।

চট্টগ্রাম : সীতাকু- উপজেলার দক্ষিণ ভাটিয়ারি ইউনিয়নের মুজিব চৌধুরীর বাড়িতে নির্বাচনী সভা চলাকালে চট্টগ্রাম-৪ (সীতাকু-) আসনে বিএনপির প্রার্থী ইসহাক কাদের চৌধুরীর প্রায় ১৫ নেতাকর্মীকে আটক করা হয়। ইসহাক কাদের আমাদের সময়কে বলেন, আজ (মঙ্গলবার) থেকে প্রচার শুরু করব। তাই কর্মিসভা আহ্বান করা হয়েছিল। সেই সভা থেকে নেতাকর্মীদের আটক করে নিয়ে যাওয়া হলো। তবে সীতাকু- থানার ওসি দেলোয়ার হোসেন জানান, নাশকতার পরিকল্পনা হচ্ছেÑ এমন সংবাদ পেয়ে পুলিশ কয়েকজনকে আটক করে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

ফরিদগঞ্জ : চাঁদপুর-৪ (ফরিদগঞ্জ) আসনে বিএনপির প্রার্থী আলহাজ এমএ হান্নান শোডাউনের উদ্দেশে ফরিদগঞ্জ উপজেলা শহরের বাসস্ট্যান্ডে বিকাল সাড়ে ৪টায় কয়েক হাজার নেতাকর্মী নিয়ে প্রবেশ করেন। পুলিশ বাধা দিলে সংঘর্ষ শুরু হয়। এতে পুলিশসহ কমপক্ষে ৩০ জন আহত হন। পুলিশ আরিফ হোসেন ও ইমাম হোসেন নামে এক সাবেক ছাত্রনেতাকে আটক করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ লাঠিচার্জ ও ৬ রাউন্ড শটগানের গুলি ছোড়ে।

বিএনপির প্রার্থী এমএ হান্নান অভিযোগ করেন, কোনো কারণ ছাড়াই তার নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালায় পুলিশ। পাল্টা অভিযোগ করেন ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ হারুনুর রশীদ চৌধুরী।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে