দখলের উৎসব

  সানাউল হক সানী

০৮ ডিসেম্বর ২০১৭, ০০:০০ | আপডেট : ০৮ ডিসেম্বর ২০১৭, ০০:১৫ | প্রিন্ট সংস্করণ

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ১ নম্বর ওয়ার্ডকে বলা হতো মডেল ওয়ার্ড। কালের বিবর্তনে এই ওয়ার্ডটি হারিয়েছে তার চরিত্র। এখন সর্বত্র দখলের উৎসব। খেলার মাঠ থেকে শুরু করে প্রধান সড়ক; বাদ যায়নি অলিগলিও। রাজধানীর প্রথম ও পরিকল্পিত আবাসিক এলাকার তকমা থাকলেও এক শ্রেণির লোভাতুর মানুষের ব্যবসাবন্দি এলাকার সড়কগুলো। ফলে প্রতিনিয়ত নানা সমস্যায় পড়তে হচ্ছে বাসিন্দাদের।

খিলগাঁও, তিলপাপাড়া ও সিপাহীবাগের খানিক অংশ নিয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ১ নম্বর ওয়ার্ড। এর পূর্ব দিকে গোড়ান, পশ্চিমে মালিবাগ, উত্তরে তালতলা চৌধুরীপাড়া এবং দক্ষিণে বাসাবো এলাকা। ওয়ার্ডের আয়তন প্রায় ছয় বর্গকিলোমিটার। প্রায় পাঁচ লাখ জনসংখ্যা অধ্যুষিত ওয়ার্ডের মোট ভোটার প্রায় ৫৬ হাজার। সাক্ষরতার হার প্রায় ৮৫ শতাংশ। ওয়ার্ডে রয়েছে পাঁচটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, আটটি উচ্চ বিদ্যালয় ও পাঁচটি কলেজ। এ ছাড়া ১৭টি মসজিদ, একটি মাতৃসদন, দুটি খেলার মাঠ রয়েছে।

এক সময় মডেল ওয়ার্ড আর আবাসিকের তকমা থাকলেও বর্তমানে ওয়ার্ডটির বাসিন্দারা দুর্বিষহ জীবনযাপন করছে। দখল আর দূষণে অতিষ্ঠ মানুষ। ওয়ার্ডের শহীদ বাকি রোড সবচেয়ে আলোচিত ও সমালোচিত এখানকার বাসিন্দাদের কাছে। এ রোডের দুই ধারে ছত্রাকের মতো গড়ে উঠেছে ফাস্টফুড, কফিশপ ও রেস্টুরেন্টসহ বহু বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান। অনুমতিবিহীন এসব দোকান ছাড়াও বিকালের পর থেকে রাস্তার দুপাশ ভরে যায় বিপুলসংখ্যক স্ট্রিটফুডের ভ্যান দিয়ে। এসব প্রতিষ্ঠানের সবই আবাসিক ভবনের নিচতলায়, এমনকি কোনো কোনো জায়গায় পুরো বাড়িটাই ব্যবহার করা হয়েছে বাণিজ্যিক কাজে। এসব অবৈধ ও অপরিকল্পিত বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের কারণে সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত সড়কে লেগে থাকে যানজট।

ওয়ার্ডের প্রায় সব রাস্তাই দখলে প্রভাবশালীদের। সরেজমিন দেখা গেছে, দখলের কারণে অনেক রাস্তায় যানবাহন চলাচলের স্থান সংকোচিত হয়ে গেছে। ১ নম্বর ওয়ার্ডে কাঁচাবাজারের জন্য সংরক্ষিত নির্দিষ্ট জায়গা থাকলেও সি ব্লক থেকে পুরনো পাকা জামে মসজিদ পর্যন্ত রাস্তাটি পুরোপুরি গিলে ফেলেছে কাঁচাবাজার। বৌবাজার নামে পরিচিত বাজারটি বছরের পর বছর প্রভাবশালীদের কব্জায় থাকলেও কারো কোনো উদ্যোগ নেই উচ্ছেদের। স্থানীয় প্রভাবশালীসহ কাউন্সিলরের প্রত্যক্ষ ছত্রছায়ায় এ মার্কেট চালু রয়েছে।

এ ছাড়া এলাকাটিতে বৃষ্টি হলেই নির্দিষ্ট কিছু জায়গায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থায় ত্রুটি, রাস্তায় ভারী যানজট, অবৈধভাবে স্কুল-কলেজ ও হাসপাতাল স্থাপনা, গভীর রাতে বহিরাগতদের আড্ডা, চুরি-ছিনতাই, বড় রাস্তার ধারে প্রকাশ্যে মাদক সেবন ও বিক্রি করাসহ নানা অভিযোগ রয়েছে এলাকাবাসীর।

সরেজমিন ওয়ার্ডটি ঘুরে দেখা গেছে, জোড়পুকুর খেলার মাঠের চারপাশে গড়ে তোলা হয়েছে অবৈধ স্থাপনা। করা হয়েছে ছোট ছোট দোকানঘর। মাঠের পাশে স্থাপন করা হয়েছে অবৈধ সিএনজি স্ট্যান্ড। স্থানীয় প্রভাবশালীরা বছরের পর বছর এ সিএনজি স্ট্যান্ড থেকে টাকা উত্তোলন করলেও নির্বিকার প্রশাসন। সূত্র জানায়, স্থানীয় সরকারদলীয় কয়েকজন নেতা ও স্থানীয় কাউন্সিলরের ছত্রছায়ায় এ দখল উৎসব চলে আসছে দীর্ঘদিন।

আবাসিক এলাকা হলেও কর্তৃপক্ষের নিরাপত্তা নিশ্চিতে নেই কার্যকর পদক্ষেপ। আবাসিক এলাকার সড়কগুলোয় নিরাপত্তা গেট, দারোয়ান ও বাসার সামনে বাড়ি নম্বর প্লেট বসানোর জন্য কাউন্সিলরের তদারকিতে প্রত্যেক বাড়িওয়ালার কাছ থেকে নির্দিষ্ট পরিমাণ চাঁদা তোলা হয়েছে বলে জানায় এলাকাবাসী। অথচ হাতেগোনা কিছু বাড়ি ছাড়া এখনো বাড়ির নম্বর প্লেট বসেনি সবখানে। আর সি ব্লক অঞ্চলে রাস্তার মুখে সিকিউরিটি গেট হলেও বাকি অঞ্চলে এখনো গেট করা হয়নি। এদিকে ছিনতাই ও অপরাধকর্ম বন্ধে সব সড়কে এলইডি বাতি লাগানোসহ সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিতে ২৫০টি ক্লোজড সার্কিট ক্যামেরা বসানোর কথা থাকলেও কাউন্সিলর কার্যালয়ের আশপাশে ও এলাকার কিছু অংশ বাদ দিয়ে কোথাও এ বাতি ও সিসি ক্যামেরার দেখা মেলেনি। কমিউনিটি সেন্টারসহ সব সরকারি সেবামূলক অফিস এক জায়গায় করতে ২০ তলা ভবনের নির্মাণকাজ শুরু হয় হয় বিএনপি সরকারের আমলে। তবে দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ রয়েছে এটির নির্মাণকাজ। কমিউনিটি সেন্টারটি পতিত থাকায় দীর্ঘ এ সময়টায় অবৈধ ভাড়াটেসহ নানা অপকর্মের অভিযোগ রয়েছে। নানা সমালোচনায় বর্তমানে কমিউনিটি সেন্টার বন্ধ করে রেখেছে কর্তৃপক্ষ।

এদিকে মাদক সেবনসহ মাদক কেনাবেচার মতো অভিযোগও রয়েছে এ ওয়ার্ডে। খোদ খিলগাঁও থানার পেছনেই রাতের আঁধারে জমছে গাঁজার আসর। সূত্র জানিয়েছে, খিলগাঁও তালতলা ডিসিসি মার্কেটের পাশে সোনালী ব্যাংকের কাছেই স’মিলের গলিগুলোয় চলে গাঁজা বেচাকেনা। এ ওয়ার্ডের পয়ঃনিষ্কাশন সংযোগটি প্রায় এক যুগ ধরে বন্ধ। বর্তমানে বর্জ্য অপসারণে সড়কের দুই পাশে সিটি করপোরেশনের নালাই প্রধান ভরসা।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে