সাক্ষাৎকারে আরএমপি কমিশনার

শান্তির নগরী গড়াই লক্ষ্য

  আমজাদ হোসেন শিমুল, রাজশাহী

১২ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ১২ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:২৩ | প্রিন্ট সংস্করণ

মহানগরীকে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদমুক্ত সুন্দর, শান্তির শহর উপহার দিতে যা কিছু করণীয়, মহানগর পুলিশ (আরএমপি) সে কাজগুলোই করছে। সবার সহযোগিতায় মাদক, জঙ্গি ও সন্ত্রাসমুক্ত শহর উপহার দেওয়ার স্বপ্ন নিয়েই আমি কাজ করছি। গতকাল দুপুরে মহানগর পুলিশের হেডকোয়ার্টারের নিজস্ব কার্যালয়ে আমাদের সময়কে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে আরএমপি কমিশনার মাহাবুবুর রহমান তার স্বপ্নের কথা তুলে ধরেন।

পুলিশ কমিশনার বলেন, সীমান্ত এলাকা হওয়ায় আমরা মাদক ব্যবসা বা সেবন নির্মূলে সবচেয়ে গুরুত্ব দিচ্ছি। এতে কোনো পুলিশ সদস্য বা ঊর্ধ্বতন কোনো কর্মকর্তা, বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র-শিক্ষক, এমনকি কোনো সাংবাদিক জড়িত থাকলেও আইনগত ব্যবস্থা নেব। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-ছাত্র বা বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের ছাত্রনেতাদের মাদকসেবন বা ব্যবসার সঙ্গে জড়িত থাকার বিষয়ে গণমাধ্যমে যে রিপোর্টটি হয়েছে, সে বিষয়েও পার্টিকুলারলি আমরা খোঁজখবর নিচ্ছি। কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়।

মাহাবুবুর রহমান বলেন, মাদক নির্মূলে আমাদের টার্গেট অনুযায়ী মাসে কমপক্ষে দুইশ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করেছি। আর দায়িত্ব নেওয়ার পাঁচ মাসে কমপক্ষে এক হাজার মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনতে সক্ষম হয়েছি। সীমান্ত এলাকা হওয়া সত্ত্বেও মাদকের বড় চালান এখনো ধরা পড়েনি।

পুলিশের এ কর্মকর্তা বলেন, মাদক ও জঙ্গিবাদ একটি অপরটির সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। এটি বৈশ্বিক সমস্যা হওয়ার কারণে এর ঢেউ বাংলাদেশে আঁচড়ে পড়ছে। আর এই ঢেউ নির্মূলে আগাম গোয়েন্দা তথ্যে সব সংস্থার সঙ্গে সমম্বয় করে অপারেশন পরিচালনা করি। সম্মিলিত প্রচেষ্টায় জঙ্গিবাদ পুরোপুরি স্তিমিত হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে পুলিশ কমিশনার বলেন, রাজশাহীতে রাজনৈতিক সন্ত্রাস বা রাজনৈতিক হাঙ্গামা এ মুহূর্তে তুলনামূলক কম। তবে সামনে রাজশাহী সিটি করপোরেশন বা সংসদ নির্বাচন কেন্দ্র করে সন্ত্রাসী কর্মকা-ের সুযোগ তৈরি হবে। কিন্তু যেই হোক না কেন, আমরা সন্ত্রাসী কর্মকা- করার সুযোগ দেব না। জামায়াত-শিবির অধ্যুষিত রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ও মহানগরীতে তাদের তৎপরতার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তারা বর্তমানে তৎপর নেই। সুযোগও দেব না।

মহানগরীতে ছিনতাই-চাঁদাবাজির বিষয়ে পুলিশ কমিশনার বলেন, অনেক সময় গভীর রাতে রেলস্টেশন কিংবা মার্কেট থেকে ফেরার পথে ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছে। প্রতিটি ঘটনায় আমরা মামলা নিচ্ছি এবং বেশিরভাগ মামলারই চার্জশিট হচ্ছে। আসামিদের গ্রেপ্তার করছি। এ ছাড়া সামাজিক অপরাধ, যেমনÑ নারী নির্যাতন, আত্মহত্যার প্রবণতা কিংবা মাদকের সমস্যাও রয়েছে। এসব বন্ধেও পদক্ষেপ নিচ্ছি।

মাহাবুবুর রহমান বলেন, রাজশাহী একটি সবুজ শহর, শিক্ষানগরী। এখানে এসে খুব রোমান্স অনুভব করছি। তবে সত্যিকার অর্থে মাদক, সন্ত্রাস ও জঙ্গিমুক্ত একটি শহর উপহার দিতে পারলে সবচেয়ে বেশি ভালো লাগবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে