সংযোগ দিতে ব্যর্থ বিদ্যুৎ কোম্পানিগুলো

  লুৎফর রহমান কাকন

১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

গ্রাহক হয়রানি না করতে বেশ কয়েক মাস আগে সরকারের বিদ্যুৎ বিভাগ একটি পরিপত্র জারি করে। এতে বলা হয়েছে, আবেদনের পর নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই গ্রাহকদের বিদ্যুৎ সংযোগ দিতে হবে। অযথা হয়রানি বা সময় নষ্ট করা যাবে না। বৈদ্যুতিক উচ্চচাপের সংযোগ ২৮ দিন এবং সাধারণ গ্রাহকদের সংযোগ ৭ দিনের মধ্যে দিতে হবে। একই সঙ্গে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সংযোগ দিতে না পারলে বিতরণ কোম্পানিগুলো গ্রাহকদের কাছে সুর্নিদিষ্ট কারণ ব্যাখ্যা করবে। কিন্তু বাস্তবে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সেটা মানছে না বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানিগুলো। বিদ্যুৎ বিভাগের সিদ্ধান্ত মোতাবেক সংযোগ দিতে পারছে না তারা।

বিদ্যুৎ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী ৭টি বিতরণ কোম্পানির অধীনে এ পর্যন্ত ৬১ হাজার ১৩টি বিদ্যুৎ সংযোগের আবেদন জমা পড়ে আছে। এগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের (বিআরইবির), ৫২ হাজার ৫৩২টি। ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির (ডিপিডিসি) ৫ হাজার ২৭৫টি, বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) ১ হাজার ৭৭৪টি, নর্থান ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানির (নেসকো) ১ হাজার ৪৪৭টি, ওয়েস্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির (ওজোপাডিকো) ৫২৭টি এবং ঢাকা ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানির (ডেসকো) ৪৬৪টি।

বিদ্যুৎ বিভাগ সূত্রে জানা যায়, পেন্ডিং আবেদনগুলোর সংযোগ দিতে ২ লাখ ২৬ হাজার ৯৮১ কিলোওয়াট লোড বরাদ্দ করতে হবে।

এদিকে সম্প্রতি বিদ্যুৎ সচিব ড. আহমদ কায়কাউসের সভাপতিত্বে বিদ্যুৎ বিভাগে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই গ্রাহকদের বিদ্যুৎ সংযোগ দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়। যেসব বিতরণ কোম্পানি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এবং যৌক্তিক কারণ ছাড়া বিদ্যুৎ সংযোগ দিতে পারবে না, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও বলা হয়েছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সংযোগ দিতে না পারলে বিদ্যুৎ বিভাগের কাছে কৈফিয়ত দিতে হবে।

বিদ্যুৎ বিভাগের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা আমাদের সময়কে বলেন, গ্রাহকদের বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া নিয়ে নানামুখী অনৈতিক বাণিজ্যের অভিযোগ রয়েছে। এসব বাণিজ্য বন্ধ করতে বিদ্যুৎ বিভাগ থেকে গ্রাহকদের সংযোগ দেওয়ার ক্ষেত্রে আবেদনের পর নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সংযোগ দিতে বলা হয়েছে, যাতে স্বচ্ছতা নিশ্চিত থাকে। তিনি আরও বলেন, এখনো পুরোপুরি সে নির্দেশ মানছে না কোনো কোনো বিতরণ কোম্পানি। কোম্পানিগুলোকে বিদ্যুৎ বিভাগের নির্দেশ মানার জন্য বলা হয়েছে। তা না হলে জবাব দিতে হবে।

তবে একাধিক বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানির কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, অনেক সময় গ্রাহকদের আবেদনের সঙ্গে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র থাকে না। ফলে চাইলেও নির্ধারিত সময়ে সংযোগ দেওয়া যায় না।

এদিকে বিতরণ কোম্পানিগুলোর সূত্র জানায়, গত ডিসেম্বর পর্যন্ত পাঁচটি বিতরণ কোম্পানি ৯৯ হাজার ৬২৮টি আবাসিক সংযোগ ৭ দিনের মধ্যে দিয়েছে। ১৫ দিনের মধ্যে দিয়েছে ৭৭ হাজার ৮৬৪টি এবং ২১ দিনের মধ্যে দিয়েছে ৭৫ হাজার ৫৬৯টি। এ সময়ের মধ্যে আবেদন ছিল ৩ লাখ ৯৯ হাজার ৪২টি।

বর্তমান সরকার ২০২১ সালের মধ্যে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দিতে চায়। ফলে বিদ্যুৎ বিভাগ চায় দ্রুত বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে সরকারের ভিশন বাস্তবায়ন করতে। তবে বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানিগুলোর ধীরগতিতে গ্রাহকদের বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার লক্ষ্য পূরণে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

এ বিষয়ে পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক মোহাম্মদ হোসেইন আমাদের সময়কে বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দিতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা রয়েছে। বিতরণ কোম্পানিগুলোও চেষ্টা করছে। তবে দ্রুত সংযোগ দেওয়ার ক্ষেত্রে কিছু সমস্যা তৈরি হয়েছে। সেগুলো চিহ্নিত করে সমাধান করা হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে