পুলিশ-ছাত্রলীগ মুখোমুখি ফের উত্তপ্ত রাঙামাটি

  রাঙামাটি প্রতিনিধি

১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

রাঙামাটিতে এবার পুলিশ ও ছাত্রলীগ মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছে। পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসান ও ওসি সত্যজিৎ বড়–য়ার অপসারণের দাবিতে মঙ্গলবার হরতাল পালন করেছে ছাত্রলীগ আর দুদিনে পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগ এনে ছাত্রলীগ-যুবলীগের ছয় শতাধিক অজ্ঞাতনামা নেতাকর্মীকে আসামি করে চারটি মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। এই পরিস্থিতিতে রাঙামাটির রাজনৈতিক অঙ্গন আবারও উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে।

সোমবার ও মঙ্গলবার দুদিনে রাঙামাটি কোতোয়ালি থানায় এসব মামলা দায়ের করা হয়।

ঘটনার সূত্রপাত ১২ ফেব্রুয়ারি। ওইদিন সন্ধ্যার দিকে শহরের স্টেডিয়াম এলাকায় জেলা ছাত্রলীগের সহ-সাধারণ সম্পাদক সুপায়ন চাকমাকে কুপিয়ে আহত করে একদল দুর্বৃত্ত। এ ঘটনার জন্য জেএসএস সমর্থিত পাহাড়ি ছাত্র পরিষদকে (পিসিপি) দায়ী করে সন্ধ্যায় শহরে টায়ার জ¦ালিয়ে সড়ক অবরোধ করে জেলা ছাত্রলীগসহ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। এক পর্যায়ে পুলিশের সঙ্গে সরকারি দলের নেতাকর্মীদের দফায়-দফায় ধাওয়া পাল্টাধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় অন্তত ৫০ জন আহত হয়। বিনা উসকানিতে নেতাকর্মীদের ওপর পুলিশের হামলার অভিযোগ তুলে এসপি, এএসপি ও ওসিকে প্রত্যাহারের দাবিতে মঙ্গলবার হরতাল পালন করে ছাত্রলীগ।

হরতাল চলাকালে সোম ও মঙ্গলবার ছাত্রলীগ কর্মীরা তিন সাংবাদিকের ওপর হামলা করে। এ ঘটনায় দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ছাত্রলীগকে ৪৮ ঘণ্টা সময় বেঁধে দেওয়া হয় সাংবাদিকদের ৪টি সংগঠন থেকে। অন্যথায় সরকারি দলের সংবাদ বর্জন, মামলা দায়েরসহ বৃহত্তর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে বলে মঙ্গলবার রাতে সাংবাদিকদের এক জরুরি বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়।

এদিকে মঙ্গলবার হরতালউত্তর সমাবেশ থেকে জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আবদুল জব্বার সুজন ও সাধারণ সম্পাদক প্রকাশ চাকমার বেঁধে দেওয়া ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম শেষ হয়েছে বুধবার সন্ধ্যায়। এ সময়ের মধ্যে রাঙামাটির এসপি সাঈদ তারিকুল হাসান, এএসপি জাহাঙ্গীর ও কোতোয়ালি থানার ওসি সত্যজিৎ বড়–য়াকে অপসারণ করার দাবি জানানো হয়েছিল। অন্যথায় আরও কঠোর কর্মসূচি দেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন তারা।

পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসান বলেন, সরকারি দলের লোকজন আমার প্রত্যাহার বা অপসারণ দাবি করতেই পারে। তবে সরকার যা ভালো মনে করে তাই হবে। তিনি রাঙামাটির পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে দাবি করে বলেন, সোমবার রাতে আমি রাস্তায় না থাকলে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা বেধে যেত। ফলে সরকারি দায়িত্ব পালনে বাধা দেওয়াসহ পুলিশ ও পথচারীদের ওপর হামলার ঘটনায় ৪টি মামলা করা হয়েছে পুলিশের পক্ষ থেকে। তিনি বলেন, জনগণের নিরাপত্তা, শান্তি-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে রাখতে পুলিশ সবসময়ই তৎপর।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে