৭ লাখ মানুষের সেবায় মাত্র ৩ চিকিৎসক

  মো. খলিলুর রহমান, ফুলপুর

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডাক্তার সংকটে স্বাস্থ্যসেবা ব্যাহত হচ্ছে।

জানা যায়, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. পরিমল কুমার পালের সঙ্গে শীতল সম্পর্কের কারণে অনেক ডাক্তার স্বেচ্ছায় বদলি নিয়ে অন্যত্র চলে গেছেন। সম্প্রতি তিনজন বিশেষজ্ঞ ডাক্তার এ হাসপাতাল থেকে চলে যাওয়ায় সংকট তীব্র আকার ধারণ করেছে।

এ হাসপাতালে প্রথম শ্রেণির ডাক্তারের পদ ২২টি। কিন্তু কাগজে-কলমে আছেন ১১ জন। তাদের মধ্যে ছয়জনই প্রেষণে অন্যত্র কাজ করছেন। ফলে কখনো তিনজনের বেশি ডাক্তার এখানে থাকেন না। মাত্র তিনজন ডাক্তার দিয়েই চলছে ফুলপুর হাসপাতালের স্বাস্থ্যসেবা। রোগীদের চাপ মোকাবিলায় চিকিৎসা দিচ্ছেন চিকিৎসা সহকারীরা। এতে উন্নত চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে রোগীরা। এ সুযোগ নিয়ে চলছে দালালদের দৌরাত্ম্য। তারা চিকিৎসাবঞ্চিত রোগীদের ফুঁসলিয়ে ভিড়িয়ে দিচ্ছে বিভিন্ন ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে।

সরেজমিন খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ৫০ শয্যার ফুলপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কোটি টাকার চিকিৎসা সরঞ্জাম অব্যবহৃত পড়ে আছে। এর মধ্যে রয়েছে উন্নত মানের এক্স-রে মেশিন ও ইসিজি মেশিন। এ ছাড়া গাইনি, প্রসূতি ও সার্জারি বিভাগ খোলার জন্য আরও বেশ কিছু সরঞ্জাম আনা হলেও টেকনিশিয়ান ও বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের অভাবে সেগুলো এ পর্যন্ত বাক্সবন্দি পড়ে আছে।

ফুলপুর ও তারাকান্দা উপজেলার সাত লাখ মানুষের চিকিৎসাসেবার কেন্দ্র ফুলপুর হাসপাতালটি ৩১ শয্যায় থাকাকালে যেসংখ্যক চিকিৎসক ছিলেন, ৫০ শয্যায় উন্নীত হওয়ার পর সেই সংখ্যা আরও কমে গেছে।

এদিকে ফুলপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অবৈধ এমআর করার অভিযোগ রয়েছে নার্সদের বিরুদ্ধে। তারা প্রায়ই দালালদের যোগসাজশে বিধিবহির্ভূতভাবে এমআর করে হাতিয়ে নিচ্ছেন মোটা অঙ্কের টাকা।

ডাক্তার সংকটের কথা স্বীকার করলেও নানা অনিয়মের কথা অস্বীকার করে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. পরিমল কুমার পাল বলেন, ডাক্তার সংকট নিরসন ও অনিয়ম রোধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে