আমেরিকার ব্রাহমা বিক্রি হলো সাড়ে ২৯ লাখে

  গোলাম সাত্তার রনি

১৭ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ১৭ আগস্ট ২০১৮, ০৯:১৪ | প্রিন্ট সংস্করণ

প্রতীকী ছবি
কড়া নাড়ছে কোরবানির ঈদ। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে রাজধানীর অস্থায়ী হাটগুলোয় আসছে কোরবানির পশুগুলো। আসছে বিদেশ থেকেও। সুদূর আমেরিকার টেক্সাস থেকে এসেছে ১১টি ব্রাহমা ও ব্রাংগাস জাতের গরু। এর মধ্যে ৭টি বিক্রি হয়েছে ইতোমধ্যে।

এবারের কোরবানির হাটে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি দামে বিক্রি হয়েছে ব্রাহমা জাতের একটি গরু। এটি কিনেছে ঈগলু গ্রুপ। উচ্চতা সাড়ে পাঁচ ফুট আর সাড়ে ১০ ফুট লম্বা লাল-খয়েরি রঙের গরুটি এক সপ্তাহ আগে বিক্রি হয় ২৯ লাখ টাকায়। মাথায় শিংহীন প্রায় ১৫শ কেজি ওজনের গরুটি এখনো বুঝে নেননি ক্রেতা। ঈদের আগের দিন সেটি হস্তান্তর করা হবে।

মোহাম্মদপুরের সাদিক অ্যাগ্রো ফার্ম টেক্সাস থেকে আরও ১০টি গরু আনে। এর মধ্যে একটি ছিল ব্রাংগাস (ব্রাহমা ও অ্যাংগাস জাতের গরুর প্রজননে ভূমিষ্ঠ) জাতের গরু। সেটি ইসলাম গ্রুপ কিনেছে ২৮ লাখে। গরুটি ওই ফার্মে থাকলেও আজ শুক্রবার ইসলাম গ্রুপের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে জানিয়েছেন সাদিক অ্যাগ্রো ফার্মের ইনচার্জ মাহেদুল সিদ্দিক।

প্রতিষ্ঠানটির আরও যে ৫টি ব্রাহমা জাতের গরু বিক্রি হয়েছে সেগুলোর মধ্যে একটি ২৮ লাখ টাকায় কিনে নিয়েছে শামীম গ্রুপ। প্রতিষ্ঠানটির বিক্রি হওয়া অন্য ৫টি গরু ধনাঢ্য ব্যক্তিরা কিনে নিয়েছেন ২০ লাখ থেকে শুরু করে ২৬ লাখ টাকায়।

মোহাম্মদপুরের সাদিক অ্যাগ্রো ফার্মের স্বত্বাধিকারী আবদুল খালেক আমাদের সময়কে বলেন, এবারের কোরবানির ঈদকে কেন্দ্র করে প্রায় ২ মাস আগে বিভিন্ন সময়ে আমেরিকার টেক্সাস থেকে ১১টি ব্রাহমা ও ব্রাংগাস জাতের গরু বিমানযোগে ঢাকায় আনা হয়। ৭টি গরু বিক্রি হয়ে গেছে। আশানুরূপ দাম পেয়েছি। বাকি ৩টি গরু ঈদের আগেই বিক্রি হয়ে যাবে বলে আশা করছেন ফার্মের স্বত্বাধিকারী।

সাদিক অ্যাগ্রো ফার্মের ম্যানেজার মো. নেছারউদ্দিন আমাদের সময়কে বলেন, ব্রাহমা গরু পালনকারী দেশ হচ্ছে আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, ব্রাজিল, ভারত, নিউজিল্যান্ড, সাউথ আফ্রিকা, জিম্বাবুয়ে ও কেনিয়া। অত্যন্ত রোগ প্রতিরোধী এবং শক্ত জাতের গরু থেকে উন্নয়ন করা বলে এই জাতের গরুর রোগবালাই খুব কম দেখা যায়।

সুস্বাদু মাংসের জন্য দুনিয়াজোড়া খ্যাত ব্রাহমা গরু খুব সহজে গরম ও আর্দ্রতা সহ্য করতে পারে। এই জাতের গরুর বিশেষ বৈশিষ্ট্য হচ্ছে অতি গরমেও এই গরু ঘেমে শরীরের তাপমাত্রা ঠিক রাখে। ক্ষতিকর পরজীবী এই গরুকে সহজে আক্রমণ করতে পারে না। যেখানে ২ বছরে দেশি গরুর ওজন ১০০-১২০ কেজি হয় সেখানে ২ বছরে একটি ব্রাহমা গরুর ওজন ৪৫০-৫০০ কেজি ওজনের হয়ে থাকে। স্বল্প ঘাস এবং খাবারেও ব্রাহমা গরু সহজে টিকে থাকতে পারে বলেই এই জাতের গরুর এত কদর।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে