শেখ হাসিনা সেতু পাল্টে দেবে চরবাসীর ভাগ্য

  শাহীন মিয়া, নরসিংদী

২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

শিগগিরই চালু হচ্ছে নরসিংদীর চরাঞ্চলের কয়েক লাখ মানুষের স্বপ্নের শেখ হাসিনা সেতু। এ সেতু মেঘনার চরের নজরপুর ও করিমপুর দুটি ইউনিয়নকে যুক্ত করবে সদরের সঙ্গে। এর ফলে চরবাসীর যাতায়াতের দুর্ভোগই কেবল কমবে না, যোগাযোগ ব্যবস্থায় নতুন দিগন্তও উন্মোচিত হবে বলে আশা করছেন এলাকাবাসী।

এদিকে শেখ হাসিনা সেতু চরাঞ্চলবাসীকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উপহার দিয়েছেন বলে মনে করেন স্থানীয় সাংসদ ও পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী লে. কর্নেল (অব) মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম হীরু। তিনি আমাদের সময়কে বলেন, প্রধানমন্ত্রী স্বপ্ন দেখেন তার পিতার দুচোখ দিয়ে। তিনি আরও বলেন, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতির ফলে চরকে আধুনিক পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা হবে। স্বপ্নের এ সেতু আগামী মাসের যে কোনো দিন প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করবেন। মেঘনা নদীর কোল ঘেঁষে সদর উপেজলার মূল ভ‚খÐ থেকে বিচ্ছিন্ন চরাঞ্চল করিমপুর ও নজরপুর ইউনিয়নে লক্ষাধিক মানুষের বাস। তাদের যাতায়াতের একমাত্র ভরসা নৌযান। প্রাকৃতিক দুর্যোগেও তা ব্যবহৃত হয়। শেখ হাসিনা সেতু নির্মাণের ফলে চরবাসীর এই দুঃখের দিন শেষ হতে চলেছে। প্রায় ১২০ কোটি টাকা ব্যয়ে ৭০০ মিটার দীর্ঘ এই সেতু নির্মাণ করেছে সরকার। এ সেতু পাল্টে দিয়েছে নদী পাড়ের কয়েক লাখ মানুষের জীবনযাত্রা। ইতোমধ্যে এলাকায় গড়ে উঠছে শিল্পকারখানা; সৃষ্টি হচ্ছে কর্মসংস্থানের।

২০০৮ সালের সংসদ নির্বাচনের সময় আওয়ামী লীগের প্রার্থী লে. কর্নেল (অব) মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম হীরু চরাঞ্চলের মানুষকে সেতু নির্মাণের প্রতিশ্রæতি দেন। ২০১৪ সালে দ্বিতীয়বার নির্বাচিত হলে তিনি দায়িত্ব পান পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রীর। তারই ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় অবশেষে সেই প্রতিশ্রæতি পূরণ হয়েছে। গত বুধবার শতাধিক নৌকার বহর দিয়ে পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রীকে মেঘনা নদীতে স্বাগত জানান আওয়ামী লীগ এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠনের নেতাকর্মীসহ কয়েক লাখ চরবাসী। পরে করিমপুরের মতিউল্লাহ স্কুল মাঠে আনন্দ উল্লাস করে প্রতিমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন এলাকাবাসী।

নজরপুর এলাকার যুবলীগ নেতা জহিরুল ইসলাম জানান, মেঘনা নদীতে এমন সেতু হবে তা আমরা স্বপ্নেও ভাবিনি। আজ আমরা গাড়ি দিয়ে বাড়ি ফিরতে পারছি। আমরা চরাঞ্চলবাসী যে কত খুশি, তা ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। করিমপুরের চরাঞ্চল থেকে আসা নরসিংদী সরকারি কলেজের অনার্সের ছাত্রী লিমা আক্তার বলেন, আমরা গাড়ি দিয়ে কলেজে আসতে পারব, সেটা কোনো দিন ভাবিনি। পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী মেঘনা নদীতে সেতু নির্মাণ করে অসম্ভবকে সম্ভব করে দিয়েছেন। সেজন্য তাকে ধন্যবাদ।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে