ষষ্ঠপা-ব

  অনলাইন ডেস্ক

৩০ জুন ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মাঠে খেলছেন ফুটবলাররা। তবে মাঠের বাইরে থেকে কলকাঠি নাড়ছেন দলের কোচ। এবারের বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ড শেষে দেখে নেওয়া যাক সেরা ছয় কোচকেÑ

তিতে

(ব্রাজিল)

ব্রাজিলের কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন তিতে। ২০১৪ সালে স্কলারি ব্যর্থ হন। সেমিফাইনালে ব্রাজিল বাজেভাবে জার্মানির কাছে হেরে বিদায় নেয়। তিতে আসার পর ব্রাজিল বেশ ভালো করছে। ফিফা র্যাংকিংয়েও ব্রাজিলের উন্নতি ঘটেছে। ব্রাজিলিয়ানরা স্বপ্ন দেখছে তিতের অধীনেই বিশ্বকাপ জিতবে তারা। তিতে এর আগে ক্লাব পর্যায়ে কোচিং করিয়েছেন। এই প্রথম জাতীয় দলের দায়িত্ব পেয়েছেন। তিতের অধীনেই বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে লাতিন আমেরিকা অঞ্চলের সেরা দল হিসেবে বিশ্বকাপে উঠেছে ব্রাজিল। তিতের অধীনে ব্রাজিল ফুটবলে আবারও সৌন্দর্য ফিরে এসেছে।

অস্কার তাবারেজ

(উরুগুয়ে)

উরুগুয়ের প্রধান কোচের দায়িত্বে রয়েছেন অস্কার তাবারেজ। ২০০৬ সালে দ্বিতীয় মেয়াদে উরুগুয়ের কোচের দায়িত্ব নেন তিনি। এর আগে ১৯৮৮ থেকে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত উরুগুয়ের কোচের দায়িত্বে ছিলেন। ২০১০ সালে তাবারেজের অধীনেই বিশ্বকাপে চতুর্থ হয় উরুগুয়ে। এ ছাড়া ২০১১ সালে কোপা আমেরিকার শিরোপাও জয় করেছেন এই কোচ। এক সময় উরুগুয়ের ডিফেন্ডার হিসেবে খেলেছেন তাবারেজ। তার অধীনে বর্তমানে ভালো ছন্দে রয়েছে দলটি।

 

রবার্তো মার্টিনেজ

(বেলজিয়াম)

স্প্যানিশ মানুষ তিনি। সাবেক ফুটবলারও। ক্লাব ক্যারিয়ার বেশ ভালোই ছিল। কোচিং ক্যারিয়ারও খারাপ নয়। ২০১৬ সাল থেকে বেলজিয়ামের দায়িত্বে রয়েছেন রবার্তো মার্টিনেজ। এর আগে সোয়ানসি, উইগান ও এভারটনের দায়িত্বে ছিলেন। ২০১৮ বিশ্বকাপ বাছাইয়ের পথ সহজ করে দিয়েছেন মার্টিনেজ

ফার্নান্দো সান্তোস (পর্তুগাল)

ফার্নান্দো সান্তোস পর্তুগালের কোচ। তিনি পর্তুগালকে ২০১৬ সালে ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপ এনে দিয়েছেন। সে ম্যাচে রোনালদো ইনজুরি নিয়ে বের হয়ে যান। তার পরও পর্তুগাল চ্যাম্পিয়ন হয় ফ্রান্সকে হারিয়ে। এ ছাড়া বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে পর্তুগাল ভালো করেছে তার অধীনেই। সান্তোস এর আগে গ্রিসের কোচ ছিলেন। পর্তুগালে বেশ সফল ৬৩ বছর বয়সী এই সাবেক ফুটবলার।

হোসে পেকারম্যান (কলম্বিয়া)

কলম্বিয়ার কোচের দায়িত্বে রয়েছেন ৬৪ বছর বয়সী হোসে পেকারম্যান। ব্রাজিল বিশ্বকাপে দলকে নিয়ে গিয়েছিলেন কোয়ার্টার ফাইনাল পর্যন্ত। স্বাগতিক ব্রাজিলের বিপক্ষে ২-১ গোলে হেরে বিশ্বমঞ্চ থেকে বিদায় নেয় কলম্বিয়া, যা দেশটির ফুটবল ইতিহাসে সেরা পারফরম্যান্স। দলকে দারুণভাবে পথ দেখানোর প্রতিদান হিসেবে তার ওপর আস্থা রাখছে কলম্বিয়া। এবারের বিশ্বকাপেও তার হাত ধরেই কলম্বিয়া লম্বা পথ পাড়ি দেবে বলে বিশ্বাস দেশটির। তারুণ্যনির্ভর দল নিয়ে বিশ্বকাপে দারুণভাবে এগিয়ে যাচ্ছে পেকারম্যান। তার অধীনে দীর্ঘ ১৬ বছর পর বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে জায়গা করে নেয় কলম্বিয়া।

দিদিয়ের দেশম (ফ্রান্স)

দিদিয়ের দেশম ফ্রান্সের সাবেক ফুটবলার। ১৯৯৮ সালে ফ্রান্সের বিশ্বকাপজয়ী দলের অন্যতম সদস্য তিনি। খেলোয়াড়ি জীবনে সফল এই ফুটবলারের হাতে এবার ফ্রান্সের ভাগ্য। ২০১৬ ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপে ফ্রান্স ফাইনালে উঠেছিল। যদিও স্বাগতিক হিসেবে শিরোপা জয় করতে পারেনি। দেশমের ফরাসি দলটি এবার বেশ তরুণনির্ভর। আর এই তরুণ দলটিকে নিয়েই তিনি সংগ্রামে নেমেছেন।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে