ভিএআরে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন

  আলী ইমাম সুমন

৩০ জুন ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বিশ্বকাপ ফুটবলে বিতর্ক এড়াতে এবারই প্রথম রাশিয়া বিশ্বকাপে রাখা হয়েছে ভিএআর বা ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি। এতে একটা বড় পরিবর্তনের সূচনা হয়েছে। ব্রাজিলের দৈনিক ফোলহা দ্য সাউ পাওলো বলছে, এবারের বিশ্বকাপে ৪০টি ম্যাচ পর্যালোচনা করে তারা দেখেছে, ১১টি ঘটনার ৯টিতেই রেফারিরা ভিএআরের ফুটেজ দেখে মত পরিবর্তন করেছেন। তার মধ্যে ছয়টি পেনাল্টির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে ভিএআরের ফুটেজ দেখার পর।

ব্রিটেনের দি টাইমস পত্রিকা বলছে, ১৫টি ভিএআর সিদ্ধান্তের মধ্যে মাত্র একটি ছিল ভুল (ফুটবলের ইন্টারন্যাশনাল বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী)। তাদের মতে, পর্তুগালের বিরুদ্ধে ইরানকে দেওয়া পেনাল্টিটি ভুল ছিল। পর্তুগাল কোচ ফার্নান্দো সান্তোসের ভাষায়, সে ম্যাচে পরিস্থিতি ‘একটু অদ্ভুত’ মোড় নিয়েছিল।

বি গ্রুপের দুই ম্যাচে চারবার রেফারি মাঠের পাশের ক্যামেরায় সিদ্ধান্ত পুনরায় যাচাই করতে যান। কাকতালীয়ভাবে, দুই হাজার কিলোমিটার দূরে অবস্থিত দুই স্টেডিয়ামেই ৯২তম মিনিটে বিতর্কিত সিদ্ধান্ত নেন দুই রেফারি। শেষ পর্যন্ত পর্তুগাল ইরানের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করে আর স্পেনের সঙ্গে মরক্কো ড্র করে ২-২ গোলে। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে পরের পর্ব নিশ্চিত করে স্পেন আর দ্বিতীয় হয় পর্তুগাল। ভিএআরের তিনটি সিদ্ধান্তই হয় সারানস্কে, যে ম্যাচে পর্তুগাল শেষ মুহূর্তে গোল খেয়ে জয়বঞ্চিত হয়।

১-০ গোলে এগিয়ে থাকার সময় ইরানের সায়েইদ এযাতোলাহি পেনাল্টি বক্সে ধাক্কা দেন পর্তুগালের রোনালদোকে। তখন খেলা চালিয়ে গেলেও কিছুক্ষণ পর মাঠের রেফারি এনরিকে কেসেরেস সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দেন। রোনালদোর পেনাল্টি শট ঠেকিয়ে দেন ইরান গোলরক্ষক। দ্বিতীয়ার্ধের মাঝামাঝি সময়ে বল দখলের লড়াইয়ের একপর্যায়ে রোনালদোর ডান হাতের আঘাত লাগে ইরানের মোর্তেজে পওরালিগাঞ্জির মুখে। রিভিউ করে ফাউলের জন্য রোনালদোকে হলুদ কার্ড দেওয়া হয়, যা অনেকের মতে লালকার্ড হতে পারত।

আবার ইনজুরি সময়ে পর্তুগালের ডি বক্সে সরদার আজসউনের নেওয়া হেড সেড্রিকের হাতে লাগলে পেনাল্টির আবেদন করে ইরান। রিভিউ শেষে তাদের দাবিতে সাড়া দেন রেফারি কেসেরেস। বিতর্কিত পেনাল্টি থেকে গোল করে ম্যাচ ড্র করে ইরান।

এদিকে স্পেন-ইরান ম্যাচে স্পেনের দ্বিতীয় গোল যে সময় ইরানকে পেনাল্টি দেওয়া হচ্ছিল, তখন স্পেন ২-১ গোলে পিছিয়ে। সেই মুহূর্তে ইয়াগো আসপাসের গোলে স্পেন সমতা আনলেও অফসাইডের কারণে বাতিল হয়ে যায় গোলটি। পরে রিভিউর পর অফসাইডের সিদ্ধান্ত বাতিল হলে স্পেন ২-২ গোলের ড্রয়ে ম্যাচ শেষ করে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে