প্রশ্ন ভালোভাবে বুঝে উত্তর দিও

গণিত

  মোহাম্মদ মুরাদ হোসেন সরকার, মাস্টার ট্রেইনার, গণিত ও উচ্চতর গণিত, সিনিয়র শিক্ষক (গণিত) ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজ। পরীক্ষক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, ঢাকা।

২৭ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

জেএসসি পরীক্ষার্থীরা শুভেচ্ছা নিও। ২০১৮ সালে তোমরা তোমাদের জীবনের গুরুত্বপূর্ণ একটি পাবলিক পরীক্ষা দিতে

যাচ্ছ। গত বছরের মতো এ বছরও তোমাদের গণিতে সৃজনশীল পদ্ধতিতে প্রশ্নের উত্তর করতে হবে। এর ওপর

আমি তোমাদের এরই মধ্যে যথেষ্ট ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করেছি আগের লেখাগুলোয়। আশা করি তোমরা উপকৃত

হয়েছ। সব মিলিয়ে তোমাদেরও প্রস্তুতি প্রায় শেষ, পরীক্ষার আগে একটু চোখ বুলিয়ে নাও

পরীক্ষায় যে প্রশ্নের

উত্তর লিখবে, প্রথমে সেই প্রশ্নটি ভালোভাবে বুঝে নিয়ে উত্তর করবে। কোনো প্রশ্নের উত্তর অসমাপ্ত রাখবে না। সুন্দর ও স্পষ্ট অক্ষরে পরিচ্ছন্ন করে লিখবে। মাঝখানে খালি পাতা রাখবে না। খাতা সাইনপেন দিয়ে রঙিন করবে না। কারণ এতে করে এক পৃষ্ঠায় সৌন্দর্য বৃদ্ধি করতে গিয়ে বিপরীত পৃষ্ঠার সৌন্দর্য কালি চুষে নষ্ট হয়। মনে রাখবে, সৃজনশীল প্রশ্নে বইয়ের কোনো প্রশ্ন যেমন হুবহু থাকবে না তেমনি প্রশ্নের ধরনও বইয়ের বাইরে হবে না। প্রশ্নের উত্তর তোমাকে উদ্দীপকের আলোকেই করতে হবে। পাঠ্যবইয়ের প্রতিটি সূত্র, উদাহরণ, কাজ অনুশীলনী খুব ভালো করে আয়ত্ত করবে। উদ্দীপক যে ধরনেরই হোক না কেন উত্তর

করতে পারবে এ বছর পরীক্ষা মানবণ্টনে সামান্য পরিবর্তন আনা হয়েছে। অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এ পাবলিক পরীক্ষায় তোমাদের প্রথমেই বলছি সিলেবাস ও মানবণ্টন অনুযায়ী তোমাদের গণিত চর্চা যদি সঠিক হয়, তবে তোমাদের প্রত্যাশা পূরণ হবেই। মানবণ্টন অনুযায়ী এ বছর গণিত সৃজনশীল রচনামূলক প্রশ্নে তোমরা মোট ১১টি প্রশ্ন দেখতে পাবে আর তোমাদের উত্তর করতে হবে ৭টি প্রশ্নের। প্রতিটি সৃজনশীল প্রশ্নের নম্বর ১০ করে ৭টি প্রশ্নের নম্বর থাকবে ৭´১০=৭০। মনে রাখবে প্রশ্নে ৪টি বিভাগ/অংশ থাকবে।

এ বছরও গণিতে বহুনির্বাচনী প্রশ্নে মোট ৩০টি প্রশ্ন থাকবে। সব কয়টি প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। সব অধ্যায় থেকে এ প্রশ্নগুলো থাকবে। প্রতিটি অধ্যায় থেকে ২টি করে বহুনির্বাচনী প্রশ্ন থাকবেই এবং প্রতিটি বহুনির্বাচনী প্রশ্নের নম্বর ১ করে মোট নম্বর থাকবে ৩০। সৃজনশীল ও বহুনির্বাচনী অভীক্ষা মোট ৭০+৩০=১০০ নম্বরের প্রশ্নে মোট সময় দেওয়া হবে ৩ ঘণ্টা।

মানবণ্টন অনুযায়ী সৃজনশীল প্রশ্নে ক, খ, গ বিভাগ থেকে ২টি করে মোট ৬টি এবং ‘ঘ’ বিভাগ থেকে আরও একটি প্রশ্নের উত্তর করতে হবে। অর্থাৎ একজন পরীক্ষার্থীকে সর্বমোট ৭টি সৃজনশীল প্রশ্নের উত্তর করতে হবে।

গণিতে পূর্ণ নম্বর পাওয়ার জন্য তোমাদের প্রতি আমার কিছু পরামর্শ রইলÑ

প্রশ্ন ১, ২ ও ৩-এ প্রথম অধ্যায়ের প্যাটার্ন থেকে একটি, দ্বিতীয় অধ্যায়ের মুনাফা থেকে একটি ও তৃতীয় অধ্যায়ের পরিমাপ থেকে একটি করে মোট তিনটি সৃজনশীল প্রশ্ন থাকবে।

ষ প্যাটার্নের (অনুশীলনী-১) প্রশ্নগুলোর মধ্যে তালিকার পরবর্তী সংখ্যা নির্ণয়, ম্যাজিক বর্গ ও ফিবোনাক্কি সংখ্যা নির্ণয় এ-জাতীয় সমস্যার সমাধানগুলো একটু বেশি করে ঢ়ৎধপঃরংব কর। আশা করি উপকৃত হবে। যে কোনো যুক্তিসঙ্গত নিয়ম গ্রহণযোগ্য হবে। মানবণ্টন অনুযায়ী এ অধ্যায় থেকে এ বছর একটি প্রশ্ন থাকবেই।

ষ মুনাফা (অনুশীলনী-২.১, ২.২)-এর প্রতিটি প্রশ্নের উত্তরে প্রয়োজনীয় স্থানে ‘%’ চিহ্নের ব্যবহার, উত্তরে সঠিক ‘একক’, আসন্ন উত্তরে ‘প্রায়’ লিখছ কিনা সে দিকে লক্ষ রাখবে। সূত্রে ঢ়, হ, ৎ দ্বারা কী বোঝাচ্ছ তা উত্তরে উল্লেখ কর। প্রশ্নের সমাধান যে কোনো যুক্তিসঙ্গত নিয়ম গ্রহণযোগ্য হবে।

ষ পরিমাপ (অনুশীলনী-৩) থেকে প্রতিটি প্রশ্নের উত্তরে সঠিক ‘একক’, আসন্ন উত্তরে ‘প্রায়’ লিখছ কিনা সে দিকে লক্ষ রাখবে। এবং প্রয়োজনীয় সাইড নোট দিতে ভুল কর না। (যেমনÑ ১ ঘন সেন্টিমিটার বিশুদ্ধ পানির ওজন ১ গ্রাম ইত্যাদি।) প্রশ্নের সমাধান যে কোনো যুক্তিসঙ্গত নিয়ম গ্রহণযোগ্য হবে। এ অধ্যায়টিও বেশি করে ঢ়ৎধপঃরংব কর।

প্রশ্ন ৪, ৫ ও ৬-এ চতুর্থ অধ্যায়ের বীজগণিতীয় সূত্রাবলি ও প্রয়োগ থেকে একটি, পঞ্চম অধ্যায়ের বীজগণিতীয় ভগ্নাংশ থেকে একটি ও ষষ্ঠ অধ্যায়ের সরল সমীকরণ থেকে একটি করে মোট তিনটি সৃজনশীল প্রশ্ন থাকবে।

ষ বীজগণিতীয় সূত্রাবলি ও প্রয়োগ (অনুশীলনী-৪.১, ৪.২, ৪.৩, ৪.৪)- এর প্রশ্নগুলোর সমাধান যে কোনো যুক্তিসঙ্গত নিয়ম গ্রহণযোগ্য হবে। বীজগণিতীয় সূত্রাবলির মান নির্ণয় ও প্রমাণ, ল. সা. গু এবং গ. সা. গু বেশি করে অনুশীলনী করবে। আশা করি উপকৃত হবে।

ষ লেখ অঙ্কন এ ধরনের প্রশ্নের সমাধান করতে গিয়ে অবশ্যই লক্ষ রাখবে ঢ-অক্ষ, ণ-অক্ষ, ঙ মূলবিন্দু এবং ক্ষদ্রতম বর্গের কত বাহুর দৈর্ঘ্যকে একক ধরেছ তা উল্লেখ করেছ কিনা? লেখ কাগজে বিন্দু স্থাপনের পূর্বে পেন্সিল যেন শার্প করা থাকে। কারণ মোটা দাগে (সরল রেখায়) সঠিক রেখা বা ছেদ বিন্দু পাওয়া যায় না।

প্রশ্ন ৭, ৯ ও ৯-এ অষ্টম অধ্যায়ের চর্তুভুজ সংক্রান্ত উপপাদ্য, নবম অধ্যায়ের পীথাগোরাসের উপপাদ্য (৯.২, ৯.৩) ও দশম অধ্যায়ের বৃত্ত সংক্রান্ত উপপাদ্য থেকে একটি, সম্পাদ্য থেকে একটি এবং সব অধ্যায়ের অনুসিদ্ধান্ত থেকে একটি করে মোট তিনটি সৃজনশীল প্রশ্ন থাকবে।

জ্যামিতি অংশে অধিক নম্বর পাওয়ার জন্য তোমাদের আরও খেয়াল রাখতে হবেÑ

ষ উপপাদ্য ও সম্পাদ্যের সাধারণ নির্বচন না লিখলেও কোনো ক্ষতি নেই।

ষ চিত্রের পর বিশেষ নির্বচন লিখবে।

ষ যে কোনো যুক্তিসঙ্গত প্রমাণ গ্রহণযোগ্য হবে। এবং পূর্ণ নম্বর পাবে।

ষ জ্যামিতির উপপাদ্যের বিকৃত চিত্রাঙ্কন করলে নম্বর পাওয়া যায় না। চিত্র যেন চোখের দৃষ্টিতে শুদ্ধ হয়, সে দিকে খেয়াল রাখবে।

ষ সম্পাদ্যের চিত্র যেন সঠিক হয় সে দিকে খেয়াল রাখবে। অঙ্কনের প্রয়োজনীয় চিহ্ন না থাকলে নম্বর পাওয়া যায় না।

ষ জ্যামিতি অনুশীলন করার সময় খাতায় সঠিক চিত্র এঁকে বারবার ঢ়ৎধপঃরপব করবে।

ষ কোনো সম্পাদ্য বা উপপাদ্য একই পৃষ্ঠায় সম্পূর্ণ লেখা হলে ভালো। তা না হলে বাম পৃষ্ঠায় উত্তর শুরু করে ডান পৃষ্ঠায় উত্তর লেখা শেষ করবে। কিন্তু উত্তর লিখতে যদি পাতা উল্টাতেই হয়, তা হলে অবশ্যই ওই পাতায় আরেকটি চিত্র আঁকবে। এতে তোমার চোখের সামনে চিত্র থাকায় চিত্র দেখে লিখতে সুবিধা হবে, পরীক্ষকের খাতা মূল্যায়ন করতেও সুবিধা হবে।

প্রশ্ন ১০ ও ১১-এ একাদশ অধ্যায়ের তথ্য ও উপাত্ত থেকে দুটি প্রশ্ন থাকবে। অবিন্যস্ত উপাত্তকে বিন্যস্ত উপাত্তে পরিবর্তন করার সময় ট্যালি (ঞধষষু) চিহ্নের ব্যবহার যাতে সঠিক হয় সে দিকে খেয়াল রাখতে হবে।

বহুনির্বাচনী প্রশ্নের ক্ষেত্রে প্রতিটি অধ্যায় থেকে দুটি করে বহুনির্বাচনী প্রশ্ন থাকবেই। অর্থাৎ এগারোটি অধ্যায় থেকে ১১´২=২২টি এবং বড় অধ্যায়গুলো থেকে বাকি ৮টিসহ মোট ৩০টি বহুনির্বাচনী প্রশ্ন থাকবে। সব কয়টি প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। প্রতিটি বহুনির্বাচনী প্রশ্নের নম্বর ১ করে মোট নম্বর থাকবে ৩০। বহুনির্বাচনী প্রশ্নের একাধিক বিকল্প উত্তরে মার্কিং করলে নম্বর পাওয়া যায় না বিধায় তোমাকে এ ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে।

পরীক্ষায় যে প্রশ্নের উত্তর লিখবে, প্রথমে সেই প্রশ্নটি ভালোভাবে বুঝে নিয়ে উত্তর করবে। কোনো প্রশ্নের উত্তর অসমাপ্ত রাখবে না। মনে রাখবে, সৃজনশীল প্রশ্নে বইয়ের কোনো প্রশ্ন যেমন হুবহু থাকবে না তেমনি প্রশ্নের ধরনও বইয়ের বাইরে হবে না। প্রশ্নের উত্তর তোমাকে উদ্দীপকের আলোকেই করতে হবে। পাঠ্যবইয়ের প্রতিটি সূত্র, উদাহরণ, কাজ অনুশীলনী খুব ভালো করে আয়ত্ত করবে। ফলে উদ্দীপক যে ধরনেরই হোক না কেন তুমি উত্তর করতে পারবে। কোনো প্রশ্নের উত্তর করে যদি কোনো কারণে তুমি তা শেষ করতে না পার এবং উত্তর করার জন্য অন্য কোনো প্রশ্ন খুঁজে না পাও অথবা সময় না থাকে তবে ওই প্রশ্নটি কেটে দেবে না। কারণ একটি প্রশ্নের কয়েকটি ধাপ থাকে এবং প্রতিটি ধাপের জন্য ১ নম্বর করে বরাদ্দ থাকে। তুমি দুটি ধাপ করলে ২ নম্বর পাবে, তিনটি ধাপ করলে ৩ নম্বর পাবে। আর চারটি ধাপ সম্পূর্ণ করলে অর্থাৎ পুরো প্রশ্নটি সম্পূর্ণ করলে ৪ মার্কস পাবে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে