‘বাংলাদেশে আসতে পারাটা দারুণ’

  অনলাইন ডেস্ক

১৮ নভেম্বর ২০১৭, ০০:০০ | আপডেট : ১৮ নভেম্বর ২০১৭, ০০:৪৯ | প্রিন্ট সংস্করণ

তাকে বলা হয় টি-টোয়েন্টির ফেরিওয়ালা। যে দেশেই কুড়ি ওভারের ক্রিকেট খেলা হোক না কেন তিনি থাকবেনই। তাকে ছাড়া খেলাটা যে ঠিক জমেও না! চার, ছক্কা হাঁকাতে নিজে যেমন আনন্দ পান তেমনি দর্শকদের মাঝেও আনন্দ ছড়িয়ে দেন। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের বড় এক বিজ্ঞাপনেরই নাম ক্রিস গেইল। বিপিএলে খেলতে বাংলাদেশে এসেছেন এ ক্যারিবিয়ান হার্ডহিটার ওপেনার। এর আগেও তিনি বিপিএলে খেলেছেন। গত আসরে তিনি ছিলেন চিটাগং দলে। এবার তার নতুন ঠিকানা হয়েছে রংপুর। বাংলাদেশে আবারও আসতে পেরে দারুণ খুশি তিনি। কুমিল্লার বিপক্ষে আজকের ম্যাচে মাঠে নামতে মুখিয়ে আছেন বলেও জানিয়েছেন সংবাদমাধ্যমকে। বিস্তারিত-

বিপিএল খেলতে আবারও বাংলাদেশে আসলেন। কেমন লাগছে?
ক্রিস গেইল : বাংলাদেশে আবারও আসতে পারা এবং বিপিএলের আবারও অংশ হতে পারাটা দারুণ। এবার আমি নতুন দলের হয়ে খেলব। আগামীকালের (আজ) ম্যাচে মাঠে নামার জন্য মুখিয়ে আছি। আশা করছি আমরা জয় নিয়েই মাঠ ছাড়তে পারব।

ওপেনিং পার্টনার হিসেবে ম্যাককালামকে কীভাবে মূল্যায়ন করবেন?
ক্রিস গেইল : আমি জানি ও (ব্রেন্ডন ম্যাককালাম) কতটা ধ্বংসাত্মক ব্যাটসম্যান। ওর সঙ্গে ওপেনিংয়ে নামাটা বিশেষ একটা ব্যাপার। এর আগে আমরা আইপিএলে একসঙ্গে ওপেনিং করেছি। বিপিএলে এবার আমরা একই দলে খেলছি। অবশ্যই এবারের অভিজ্ঞতাটা নতুন। তবে আমরা বিস্ফোরক একটা ইনিংস খেলার জন্যই মাঠে নামব। আমরা জানি, আমাদের নিয়ে প্রত্যাশাটা একটু বেশি। মাঠে নিজেদের সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করব।

টি-টোয়েন্টির দুই সেরা ব্যাটসম্যান (গেইল, ম্যাককালাম) মাঠে নামবে। সমর্থকদের প্রত্যাশার বিষয়টিকে কীভাবে দেখেন?
ক্রিস গেইল : বাংলাদেশের সবাই মুখিয়ে আছেন আমার এবং ম্যাককালামের ব্যাটিং উপভোগ করার জন্য। এ কারণে চাপটা আমাদের ওপরও থাকছে। কিন্তু আমরা এসবই প্রত্যাশা করি। দর্শকদের অনেক শোরগোল থাকবে, এটা খুবই চমৎকার হবে যদি আমরা ভালো শুরু করতে পারি, অনেক বেশি বাউন্ডারি হাঁকাতে পারি এবং দর্শকদের উত্তেজনা দিতে পারি। দেখা যাক কী ধরনের টোটাল আমরা পাই কিংবা দিতে পারি।

দর্শকদের আনন্দ দিতে আপনার নিজেরও নিশ্চয় কিছু লক্ষ্য থাকে?
ক্রিস গেইল : অধিকাংশ সময়ই আমি যখন ব্যাট করতে নামি মূল উদ্দেশ্য থাকে ভক্তদের উপভোগ্য কিছু দিতে। তারা অনেক অর্থ খরচ করে মাঠে আসে। খেলাটা উপভোগ করতে চায়। চার ছক্কা দেখতে চায়। তবে আমি অনেক বেশি ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে মাঝে মধ্যে সমস্যায় পড়ি। যখন এটা হয়ে যায় ব্যাপারটা দারুণ হয় এবং সবাই খুশিও হয়।

মাশরাফির ক্যাপ্টেনসিকে কীভাবে দেখছেন?
ক্রিস গেইল : মাশরাফি অভিজ্ঞ। ওর নেতৃত্বে দলে অনেক অভিজ্ঞতার সমন্বয় আছে। বোলিং আক্রমণেও প্রচুর অভিজ্ঞতা আছে। আমাদের বোপারা আছে। এমন কোনো পরিস্থিতি নেই যে আমাদের নির্দিষ্ট এক ব্যক্তির ওপর নির্ভর করতে হবে। দলে অনেক ম্যাচজয়ী পারফর্মার আছে। সুতরাং বিষয়টি এমন নয় যে আমরা শুধু গেইল এবং ম্যাককালাম কিছু করে দেবে সেটার ওপর নির্ভর করব।

কতগুলো ছক্কা হাঁকাতে চান?
ক্রিস গেইল : সাধারণত আমি কোনো প্রতিযোগিতায় ছক্কার পরিমাণ নিয়ে পরিকল্পনা করি না। আশা করছি আমরা ভালো শুরু করতে পারব এবং আগামীকাল (আজ) এবং হয়তো পুরো টুর্নামেন্টের জন্য একটা ছন্দ তৈরি করতে পারব।

নিজেদের প্রমাণ করার কিছু দেখেন কিনা?
ক্রিস গেইল : আমরা দুজনই একই চিন্তা করি। আমাদের গেম প্ল্যান নিয়ে কাজ করতে হবে। আমি এবং ম্যাককালামের মধ্যে কোনো কিছু প্রমাণ করার নেই। আমরা মাঠে নেমে খেলাটা উপভোগ করতে চাই এবং কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিয়ে পরিস্থিতি অনুসারে খেলতে চাই। যদি কোনো নির্দিষ্ট বোলারকে বিধ্বস্ত করতে হয় আমরা যতখানি সম্ভব সেটা নিয়ে কাজ করব।

আর ৪২৯ রান করলেই টি-টোয়েন্টিতে ১১ হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করবেন। এ টুর্নামেন্টেই কি তা করার লক্ষ্য থাকবে?
ক্রিস গেইল : এমন কোনো লক্ষ্য নিয়ে আমি মাঠে নামি না। তবে সুযোগ থাকছে। অনেক ম্যাচই খেলব। দেখা যাক। যদি হয়ে যায় ভালো। না হলেও সমস্যা নেই। সামনে আরও টুর্নামেন্ট রয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে