এত কম বেতন কিশোরীদের

  ক্রীড়া প্রতিবেদক

২০ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ২০ আগস্ট ২০১৮, ০৯:০৮ | প্রিন্ট সংস্করণ

সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ নারী চ্যাম্পিয়নশিপ টুর্নামেন্টে শিরোপা ধরে রাখতে পারেনি বাংলাদেশের মেয়েরা। পরশু ফাইনালে ভারতের কাছে ১-০ গোলের ব্যবধানে হেরে রানার্সআপ হয় গোলাম রব্বানী ছোটনের দল। ভুটানের সাফ মিশন শেষে আজ বাড়ি ফিরছে মেয়েরা।

সকালে বিমানবন্দরে পৌঁছার পর বাফুফে কর্তারা মেয়েদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানাবেন। বিমানবন্দর থেকে ঈদের ছুটি কাটাতে যে যার বাড়িতে চলে যাবেন। বাফুফের সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগের কাছ থেকে এমন তথ্যই জানা গেছে।

ঘরের মাঠে কিংবা দেশের বাইরে থেকে কোনো সাফল্য বয়ে আনলেই মেয়েদের সংবর্ধনা দিয়ে থাকে বাংলাদেশ ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা বাফুফে। মেয়েরা এবার প্রত্যাশিত ফল করতে পারেনি। গত আসরের চ্যাম্পিয়ন হওয়া দলটি এবার হয়েছে রানার্সআপ। যেহেতু প্রত্যাশামতো সাফল্য পায়নি, তাই ঘরে ফেরার সঙ্গে সঙ্গেই সংবর্ধনা দেওয়া হচ্ছেনা মারিয়া, তহুরাদের।

সংবর্ধনা যে একেবারে দেওয়া হবে না এমনও নয়। এ ব্যাপারে বাফুফে সাধারণ সম্পাদক সোহাগ বলেন, মেয়েরা আগামীকাল (আজ) দেশে ফেরার পর পরই তাদের ঈদের ছুটিতে যার যার বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়া হবে। সবার জন্যই সেভাবে ব্যবস্থা করা হয়েছে। আপাতত আনুষ্ঠানিক কোনো সংবর্ধনা দেওয়া হচ্ছে না। ঈদের ছুটি কাটিয়ে আসুক এর পর দেখা যাবে। আবার এমনও হতে পারে, ঢাকায় ফেরার পর পর সংবর্ধান দেওয়া হতেও পারে। এ বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

সারা বছরই বাফুফের ক্যাম্পে থাকে মেয়ে ফুটবলাররা। বাফুফের বেতনভুক্ত কোচ গোলাম রব্বানী ছোটনের অধীনে দুই বেলার কঠোর অনুশীলন করে তারা। যেহেতু সারাবছরই মেয়েদের ক্যাম্পে থাকতে হয় এবং মেয়েদের কোনো লিগও হয় না, তাই তাদের আয়ের উৎস নেই বললেই চলে। মেয়েদের তাই মাসিক বেতন প্রদান করে বাফুফে।

৪২ জন মেয়ে এখন বাফুফের অধীনে ক্যাম্প করছে। এদের মধ্যে ২৩ জন মাসিক ১০ হাজার টাকা করে বেতন পায়। বাকি ১৯ জন নতুন খেলোয়াড়। এদের দেওয়া হয় মাসিক ৩ হাজার টাকা করে। আমাদের সময়কে এমন তথ্য জানান বাফুফের নারী উইংয়ের চেয়ারম্যান এবং ফিফা কাউন্সিলর মাহফুজা আক্তার কিরণ। মেয়েদের দেখভালের সব কাজই করেন কিরণ। মেয়েরা নিয়মিত বেতন ভাতা পেলেও ছেলেরা জাতীয় দলের ক্যাম্পে থাকলেই কেবল বেতন পান। এই যে এশিয়ান গেমসে জাতীয় পুরুষ ফুটবল দল এখন ইন্দোনেশিয়াতে খেলছে, তাদের এককালীন কিছু অর্থ দিয়েছে বাফুফে।

কয়েক বছর ধরে দারুণ সাফল্য দেখিয়ে চলেছে বাংলার নারী ফুটবলাররা। সাফে যেমন আলো ছড়িয়েছে, তেমনি এএফসিতেও। অনূর্ধ্ব-১৪ নারীরা দুবার আঞ্চলিক চ্যাম্পিয়নশিপের চ্যাম্পিয়ন, অনূর্ধ্ব-১৬ মেয়েরা ঘরের মাঠে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন, অনূর্ধ্ব-১৫ সাফে মেয়েরা চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেছে। এবার অল্পের জন্য চ্যাম্পিয়নের স্বাদ পায়নি। ভারতের কাছে হেরে আজ রানার্সআপ ট্রফি হাতে দেশে ফিরছে মারিয়া, মনিকা, তহুরারা।

এদিকে বাংলাদেশ থেকে তেমন কোনো সংবর্ধনার ব্যবস্থা রাখা না হলেও ভুটানের নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত জিশু রায় চৌধুরী গতকাল ভুটানের থাকা অনূর্ধ্ব-১৫ দলের মেয়েদের সংবর্ধনা দিয়েছেন।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে