ভারত-মালদ্বীপ ফাইনাল

  ক্রীড়া প্রতিবেদক

১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

এশিয়ান গেমসে খেলা ভারতের অনূর্ধ্ব-২৩ দলটি সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে দারুণ খেলছে। ‘বি’ গ্রুপ থেকে সেরা দল হিসেবে সেমিফাইনালে ওঠে তারা। সেখানে পাকিস্তানকে হারিয়ে আবারও সাফের ফাইনালে উঠেছে ভারত। শিরোপার লড়াইয়ে আজ ভারতের সামনে মালদ্বীপ। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে দুদলের ফাইনাল ম্যাচটি সন্ধ্যা ৭টায় শুরু হবে। সাফের গত এগারোটি আসরের মধ্যে সর্বোচ্চ ৭ বার শিরোপা জিতেছে ভারতীয়রা। অন্যদিকে ২০০৮ সালে একবারই চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল মালদ্বীপ। আজ সাফে ভারত অষ্টম নাকি দ্বিতীয় বারের মতো শিরোপা ঘরে তুলবে মালদ্বীপ? সেটি মাঠের লড়াইয়ে দেখা যাবে।

সাফে ভারত-মালদ্বীপ দুটি দলই তারুণ্যনির্ভর। ভারতের কোচ স্টিফেন কনস্ট্যানটাইন জানান, গত চার বছরে ভারতের জাতীয় ফুটবল দলে ৩৮ জন খেলোয়াড়ের অভিষেক হয়েছে। একটি গঠন প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়েই যাচ্ছে তারা। সে জন্যই সাফে অনূর্ধ্ব-২৩ দল খেলছে। তিনি আরও বলেন, ‘ছেলেরা ভালো খেলে ও যোগ্যতর দল হিসেবে ফাইনালে উঠেছে। মালদ্বীপকে খাটো করে দেখার কিছু নেই। কারণ নেপালের বিপক্ষে ভালো ম্যাচ খেলে ফাইনালে এসেছে দলটি। তাদের প্রতি সর্বোচ্চ সম্মান রেখেই আমরা মাঠে নামব।’ পাকিস্তানের বিপক্ষে সেমিফাইনালে লালকার্ড দেখেন ভারতের লালিয়ান জোয়ালা। তাকে ফাইনালে মিস করবে ভারত। তবে শিরোপা জয়ে চোখ ভারতের। দলটির অধিনায়ক সুভাশিস বোস বলেন, ‘আমরা ভাবতে পারিনি যে ফাইনালে খেলব। তবে আমাদের প্রস্তুতি ভালো ছিল। আমরা নিজেদের প্রমাণ করেই ফাইনালে এসেছি। ট্রফি জয়ই আমাদের লক্ষ্য। আমরা দেশের বাইরে খেলতে এসেছি। তার পরও এখানে অনেক দর্শক আমাদের সমর্থন জানিয়েছে। আশা করি ফাইনালেও দর্শকরা আমাদের সমর্থন দিতে মাঠে আসবে।’

ফিফা র্যাংকিংয়ে ভারত ৯৬ ও মালদ্বীপের অবস্থান ১৫০। শুধু র্যাংকিং নয়, অতীত রেকর্ডেও পিছিয়ে মালদ্বীপ। সব মিলিয়ে ভারতের বিপক্ষে ১৮টি ম্যাচ খেলে তাদের জয় মাত্র ৩টিতে। ১৩টি ম্যাচ জিতেছে ভারত। ড্র হয়েছে ২টি ম্যাচ। ভারতের চেয়ে পিছিয়ে থাকলেও শিরোপা জয়ের জন্যই মাঠে নামবে মালদ্বীপ। দলটির কোচ পিটার সেগ্যার্ট জানান, ভারত অনেক বড় দল। আমাদের তুলনায় তাদের জনসংখ্যা অনেক বেশি। কিন্তু ম্যাচটি হবে দুদলের ১১ জন খেলোয়াড়ের মধ্যেÑ আশাবাদী যে ছেলেরা ফাইনালে ভালো খেলবে। তিনি আরও বলেন, ‘সাফের আয়োজনে আমরা খুবই খুশি। সব ধরনের আতিথেয়তা পাচ্ছি। দল ফাইনালে উঠেছে, এটি আনন্দের বিষয়। ছেলেরা ভালো খেলছে গত কয়েক মাস ধরে।’

ভারতের বিপক্ষে ফাইনাল ম্যাচটি অন্য রকম হবে বলে মনে করেন সেগ্যার্ট। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের অনেক মানুষ মালদ্বীপে কাজ করে। আমরা চাইব, বাংলাদেশের দর্শকরা যেন আমাদের অনেক বেশি সমর্থন দেয়।’ মালদ্বীপের অধিনায়ক আকরাম আবদুল ঘানি বলেন, ‘গ্রুপপর্ব আমাদের ভালো হয়নি। নয় বছর পর আমরা সাফের ফাইনালে এসেছি। এটা আমাদের জন্য বড় সুযোগ। এ সুযোগ হাতছাড়া করতে চাই না আমরা। ট্রফি জেতাই আমাদের একমাত্র লক্ষ্য।’ গ্রুপপর্বে কোনো ম্যাচ না জিতে টস-ভাগ্যে সেমিফাইনালে উঠেছিল মালদ্বীপ। সেমিফাইনালে নেপালকে ৩-০ গোলে হারিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করে তারা। জয়ের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে চাইবে মালদ্বীপ।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে