প্রথম দেখায় কে কেমন ছিলেন

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৩ জুন ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ১৩ জুন ২০১৮, ০০:২৪ | প্রিন্ট সংস্করণ

ইতিহাস রচনা করেছেন ট্রাম্প ও কিম। দুই দেশের দুই শীর্ষ নেতার মধ্যে এই প্রথম একটি বৈঠক হলো। গতকাল মঙ্গলবার। সিঙ্গাপুরের সেন্তোসা দ্বীপের কাপেলা হোটেলে। মুখোমুখি বৈঠকের শুরুতেই দুই নেতা করমর্দন করেন। হাসিমুখে। কিন্তু অবিশ্বাসের অতীত এবং বিদ্বেষমূলক বাগ্মিতা কি ভুলে যেতে পারবেন দুই নেতা? এর উত্তর রহস্যজনকভাবেই খানিকটা পাওয়া যেতে পারে তাদের সংক্ষিপ্ত কিন্তু অতিতাৎপর্যময় সাক্ষাতের মুহূর্তগুলোয়। যেমনটা বিবিসি বিশ্লেষণ করার চেষ্টা করেছে বিশেষ কিছু মুহূর্তে দুজন কেমন ছিলেন।

প্রথমে ডান দিক থেকে ট্রাম্পকে এবং বাঁ দিক থেকে কিমকে আসতে দেখা যায়। ট্রাম্প প্রথমে হাত বাড়িয়ে দেন। তারা করমর্দন করেন। প্রথম সাক্ষাতেই কিম বলেন, আপনার সঙ্গে দেখা হয়ে ভালো লাগছে, প্রেসিডেন্ট।

তবে প্রথম এ করমর্দন স্থায়ী হয় মাত্র ১২ সেকেন্ড। ট্রাম্প সাধারণত অন্য কোনো নেতার সঙ্গে এত অল্প সময় হাত ধরে থাকেন, এমন নয়। আবার দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে ইনের সঙ্গে যতটা নাটকীয় ভঙ্গিতে করমর্দন করেছিলেন কিম, ট্রাম্পের সঙ্গে তেমনটা করেননি তিনি। তা হলে কি দুই নেতা ততটা স্বস্তিতে ছিলেন না? দেহভাষা বিশেষজ্ঞরা তেমনটাই মনে করছেন। যদিও তারা বলছেন, পুরোটা সময় ধরে ট্রাম্পকে নেতৃত্বে দেখা গেছে। তিনি বারবার কিমকে যেন নির্দেশনা দিচ্ছেন, কোন দিকে যেতে হবে, কী করতে হবে ইত্যাদি। একপর্যায়ে দেখা যায়, কিমের ঘাড়ে হাত রাখেন ট্রাম্প। দেহভাষা বিশারদ মনজ বসুদেব বিবিসিকে বলেছেন, এটার মানে হলো ট্রাম্প আসলে কর্তৃত্ব নিয়ে ছিলেন।

আরেকটা ছবিতে দেখা যায়, ট্রাম্প ও কিম বসে আছেন। কিম তাকিয়ে আছেন মাটির দিকে। আর ট্রাম্প দুই হাত জড়ো করে আছেন। কেউ কারো দিকে তাকাচ্ছেন না। ট্রাম্প মাঝে মধ্যে আঙুল ভাঁজ করছেন। বসুদেব বলেন, এটা থেকে স্পষ্ট বোঝা যায়, তারা দুইজন ততটা স্বচ্ছন্দে ছিলেন না।

দুই নেতার মধ্যে ৪০ মিনিটের মতো একান্ত বৈঠক হয়। এর পর তারা মধ্যাহ্নভোজেও একসঙ্গে ছিলেন। ওই সময়ই তারা করমর্দন করেন। এখন দেখার বিষয়, এই বন্ধুত্ব টেকে কতদিন।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে