দুপুরে একসঙ্গে কী খেলেন তারা

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৩ জুন ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

দুই নেতার শীর্ষ বৈঠকের পর দুপুরের খাবারে পূর্ব ও পশ্চিমের মেলবন্ধনের অপূর্ব নজির পাওয়া গেছে। রয়টার্স জানিয়েছে, ট্রাম্প আর কিমের আপ্যায়ন তালিকায় গরুর পাঁজরের মাংসের সঙ্গে টক-মিষ্টি শূকরের মাংস রাখা হয়। এ ছাড়া হোয়াইট হাউসের প্রকাশ করা মেনুতে দেখা গেছে, চিংড়ির ককটেল ও অ্যাভোকাডো সালাদ দিয়ে দুই নেতার ভোজনপর্ব শুরু হয়। সঙ্গে ছিল মধুর ছটা দেওয়া দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার কাঁচা আমের সালাদ ও তাজা অক্টোপাস। ছিল স্টাফ করা শসার কোরীয় ডিশ ‘ওইজেন’।

গরুর পাঁজরের মাংস পরিবেশন করা হয় ভাজা ব্রুকলি ও আলুর দোপিনোর সঙ্গে। ছিল লালচে এশীয় শাকসবজি দিয়ে অল্প আঁচে রান্না কড মাছের কোরীয় পদ ‘দায়েগু জরিম’। পাশাপাশি শেষ পর্বে ছিল কালো চকোলেটের টার্টলেট গানাচে, হাগেন-দাজস ভ্যানিলা আইসক্রিমের সঙ্গে চেরি কুলিস ও ক্রিম মাখানো পেস্ট্রি ট্রপিজিয়েনে।

বৈঠকের ১০ দিক

১ এই প্রথম উত্তর কোরিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষমতাসীন রাষ্ট্রনায়করা মুখোমুখি সাক্ষাৎ করলেন।

২ বৈঠক ‘ফলপ্রসূ’ হওয়ায় ‘সম্মানিত’ হয়েছেন ট্রাম্প। তিনি বলেন, ঐতিহাসিক নথিতে সই করেছি আমরা।

৩ কিম বলেছেন, বিশ্ব ব্যাপক পরিবর্তন দেখবে।

৪ ট্রাম্প ৪ মিনিটের একটি ভিডিও দেখিয়েছেন কিমকে। মার্কিন নেতার ভাষায়Ñ এটি হলো উত্তর কোরিয়ার ‘ভবিষ্যতের ভিডিও’। এতে বলা হয়, কিম কি ‘শান্তির সঙ্গে করমর্দন করবেন?’

৫ কাপেলা হোটেলের কাছে বিক্ষোভরত পাঁচ দক্ষিণ কোরীয়কে সোমবার রাতে আটক করে সিঙ্গাপুরের পুলিশ।

৬ পুরোপুরি পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণে রাজি হয়েছে উত্তর কোরিয়া।

৭ দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের যৌথ মহড়াকে ‘উসকানিমূলক’ অভিহিত করে এই ‘যুদ্ধ যুদ্ধ খেলা’ বন্ধের ঘোষণা দিয়েছেন ট্রাম্প।

৮ ট্রাম্প বলেছেন, কিম খুব বুদ্ধিমান। আমি কিমকে বিশ্বাস করি, যা বলেছেন তা তিনি করে দেখাবেন।

৯ আগে কথায় কথায় গালাগালের ব্যাপারে ট্রাম্প বলেন, ওগুলো ওই সময়ের জন্য উপযুক্ত কথা ছিল। ফক্স নিউজকে তিনি বলেন, এসব কথা বলতে অনেক সময়ই খারাপ লেগেছে। কিন্তু এসব বাগ্মিতাই বৈঠকে সফল করেছে।

১০ মধ্যাহ্নভোজের সময় ট্রাম্প কৌতুক করে আলোকচিত্রীদের এমনভাবে ছবি তুলতে বলেন, যাতে তাদের ‘সুদর্শন আর পাতলা’ দেখায়।

 

দুই নেতার সুরবদলের কথাচিত্র

বৈরিতা ভুলে বিদ্বেষ মুছে শান্তির জন্য মুখোমুখি হলেন দুই নেতাÑ ট্রাম্প ও কিম। বৈঠকের আগে এক বছরে তাদের কথায়, সুরে বদল এসেছে বারেবারে। সেই কথাচিত্রই এখানে তুলে ধরা হলো।

মূল : বিবিসি, অনুবাদ : জাহাঙ্গীর সুর

২৮ এপ্রিল ২০১৭

‘উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে বড়, ভয়ানক সংঘর্ষের আশঙ্কা দূর করার এখনো একটা সুযোগ আছে।’

সাক্ষাৎকারে রয়টার্সকে ট্রাম্প

১৫ মে ২০১৭

‘উত্তর কোরিয়াকে ক্ষেপাতে যুক্তরাষ্ট্র যদি বিশ্রি কোনো পদক্ষেপ নেয়, তা হলে ইতিহাসের ভয়ঙ্কর ধ্বংসযজ্ঞ থেকে দেশটি মুক্তি পাবে না।’

রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমে কিম

৪ জুলাই ২০১৭

‘আরেকটি ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করল উত্তর কোরিয়া। নিজের জীবন নিয়ে ভালো কিছু করার আর কি কিছু নেই এই লোকটার?’

টুইটে ট্রাম্প

৪ আগস্ট ২০১৭

‘উত্তর কোরিয়ার জন্য সবচেয়ে ভালো হয় যদি তারা যুক্তরাষ্ট্রকে আর কোনো হুমকি না দেয়। নইলে তারা এমন এক ধ্বংসলীলার শিকার হবে, পৃথিবী যা দেখেনি আগে।’

গণমাধ্যমের জন্য এক বিবৃতিতে ট্রাম্প

৯ আগস্ট ২০১৭

‘যুক্তরাষ্ট্র কি শেষমেশ বেপরোয়া সামরিক রোমাঞ্চ খুঁজছে? তা হলে মার্কিন সাম্রাজ্যের মহাপতন ঘটবে শিগগিরই।’

কোরিয়ান পিপল’স আর্মির বিবৃতি

১১ আগস্ট ২০১৭

‘সামরিক সমাধানই এখন মুখ্য। সবকিছু প্রস্তুত আছে, পর্যাপ্ত পরিমাণে আছে। উত্তর কোরিয়ার কি উচিত হবে অবিবেচকের মতো আচরণ করা?’

ট্রাম্পের টুইট

১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭

‘তার নিজের জন্য এবং তার শাসনব্যবস্থার জন্য এক আত্মঘাতী মিশনে রয়েছেন রকেটম্যান। যুক্তরাষ্ট্র কি শেষমেশ বেপরোয়া সামরিক রোমাঞ্চ খুঁজছে? তা হলে মার্কিন সাম্রাজ্যের মহাপতন ঘটবে শিগগিরই।’

জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে দেওয়া বক্তব্যে ট্রাম্প

২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭

‘ভীত কুকুর চেঁচায় বেশি। মানসিকভাবে বিকারগ্রস্ত মার্কিন বুড়োভামকে আমি আগুন দিয়ে বশে আনব। অবশ্যই এবং অতিঅবশ্যই।’

এক বিবৃতিতে কিম

৮ নভেম্বর ২০১৭

‘আমেরিকা আগে যে চুপচাপ ছিল, সেটাকে উত্তর কোরিয়া দুর্বলতা হিসেবে মনে করছে। এটা হবে একটা মারাত্মক ভুল অঙ্ক। আমাদের খাটো করে দেখবেন না এবং ভুলেও আমাদের সঙ্গে লাগতে আসবেন না।’

ট্রাম্পের টুইট

১১ নভেম্বর ২০১৭

‘ট্রাম্পের মতো পাগলের কা-জ্ঞানহীন কথাবার্তায় আমরা বিচলিত নই। এসব বাজে কথা আমাদের অগ্রগতি থামাতে পারবে না।’

বিবৃতিতে উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী

১২ নভেম্বর ২০১৭

‘কি জং উন আমাকে বুড়ো বলে অপমান করেছেন। কেন? কই আমি তো তাকে বেঁটে ও মোটকু বলিনি। যা হোক, এর পরও তার বন্ধু হওয়ার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। সম্ভবত কোনো একদিন এটা সম্ভবও হতে পারে।’

ট্রাম্পের টুইট

১ জানুয়ারি ২০১৮

‘যুক্তরাষ্ট্রের জানা উচিত, পারমাণবিক অস্ত্রের বোতাম কিন্তু আমার টেবিলেই রাখা। যুক্তরাষ্ট্রের পুরো ভূখ- আমাদের পারমাণবিক হামলার সক্ষমতার আওতাভুক্ত।’

নববর্ষের ভাষণে কিম

৩ জানুয়ারি ২০১৮

‘তার ধসে পড়া, খাদ্যসংকটে রাষ্ট্রে কেউ কি আছেন, দয়া করে তার কানে এ বার্তা পৌঁছে দিন যে, আমারও একটা পারমাণবিক বোতাম আছে। এটা কিন্তু তার বোতামের চেয়ে আরও বেশি বড়, আরও বেশি শক্তিশালী এবং আমার বোতামটা কাজ করে।’

টুইটে ট্রাম্প

১৬ জানুয়ারি ২০১৮

‘নববর্ষে ট্রাম্প যে খিুঁচনি দিয়েছে, এতে এক হতভাগার মানসিক বিকারগ্রস্ত অবস্থাই ফুটে উঠেছে। তিনি উত্তর কোরিয়ার সেনাবাহিনী ও জনতার প্রবল অগ্রগতিকে বুঝতে ব্যর্থ হয়েছেন।’

রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত দৈনিক রোডং সিনমামের সম্পাদকীয়তে

৬ মার্চ ২০১৮

‘উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে বিশেষ করে কথা কাটাকাটিতে দীর্ঘ সময় পার করে আসছি আমরা।’

গণমাধ্যমের কাছে ট্রাম্প

২০ এপ্রিল ২০১৮

‘২১ এপ্রিল থেকে উত্তর কোরিয়া পারমাণবিক পরীক্ষা বন্ধ রাখবে। আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণও বন্ধ রাখা হবে।’

বিবৃতিতে কিম

২৮ এপ্রিল ২০১৮

‘আমি মনে করি, আমরা ২০০৩-০৪ সালে লিবিয়া মডেলের মতো কিছু ভাবছি।’

সিবিএস নিউজকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ট্রাম্পের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন

১০ মে ২০১৮

‘কিম জং উন এবং আমার মধ্যকার বহুকাক্সিক্ষত বৈঠকটি ১২ জুন সিঙ্গাপুরে হবে। বিশ্ব শান্তির জন্য এটাকে খুব তাৎপর্যময় স্মৃতি হিসেবে গড়ে তোলার চেষ্টা করব, আমরা দুজন।’

ট্রাম্পের টুইট

১২ মে ২০১৮

‘উত্তর কোরিয়া ঘোষণা করেছে যে, ১২ জুনের মহাবৈঠকের আগে তারা এই মাসেই পারমাণবিক পরীক্ষাকেন্দ্র গুঁড়িয়ে দেবে। ধন্যবাদ। খুবই স্মার্ট ও কল্যাণকামী পদক্ষেপ।’

ট্রাম্পের টুইট

১৫ মে ২০১৮

‘লিবিয়ার সঙ্গে উত্তর কোরিয়াকে তুলনার সাহস দেখানো খুবই হাস্যকর। পারমাণবিক বিসর্জনের ইচ্ছা আমাদের নিজেদের। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র যদি জোর করে একদিকে ঠেলে দিতে চেষ্টা করে, তা হলে এ ধরনের সংলাপে বসতে আমরা আগ্রহী নই।’

বিবৃতিতে উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

২১ মে ২০১৮

‘উত্তর কোরিয়া যখনই বলেছে যে তারা পারমাণবিক অস্ত্র পরিত্যাগ করবে, তখনই বিনিময়ে তাদের আমরা ছাড় দিয়েছি। কিন্তু দেখা গেছে, তারা অঙ্গীকার ভঙ্গ করেছে, অস্ত্র নয়; প্রতিশ্রুতি পরিত্যাগ করেছে। ডোনাল্ড ট্রাম্পকে নিয়ে খেলবেন, কিম যদি এমন কিছু ভেবে থাকেন, তাহলে ভয়ঙ্কর ভুল হবে।’

ফক্স নিউজকে মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স

২৩ মে ২০১৮

‘মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্টের মুখ থেকে স্টুপিড মার্কা এমন মূর্খ কথাবার্তা শুনব, এটা আমি কল্পনাতেও ভাবতে পারিনি।’

বিবৃতিতে উত্তর কোরিয়ার উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী চোয়ে সন হুই

২৪ মে ২০১৮

‘দুঃখের সঙ্গে বলতে হচ্ছে, সম্প্রতি আপনার কথাবার্তায় যে চরম ক্ষোভ ও খোলামেলা শত্রুতার ভাব লক্ষ করলাম, এর পর মনে হচ্ছে, বহুপ্রতীক্ষিত বৈঠকে বসা অযৌক্তিক।’

হোয়াইট হাউসের বিবৃতিতে ট্রাম্প

২৪ মে ২০১৮

‘তিনি সংলাপ বাতিলের ঘোষণা দিলেন হঠাৎ। এবং একতরফা। এটা আমাদের কাছে খুবই অপ্রত্যাশিত। এর জন্য আমাদের বেজায় খারাপ লাগছে। তবে আমরা লক্ষ্যে অবিচল। কোরীয় উপদ্বীপে স্থিরতার জন্য এবং মানবজাতির শান্তির জন্য যা কিছু করা সম্ভব, সবটাই করব।’

বিবৃতিতে উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

২৫ মে ২০১৮

‘উত্তর কোরিয়ার পক্ষ থেকে উষ্ণ ও ফলপ্রসূ বিবৃতি পাওয়াটা খুব ভালো খবর। এটা কোন পথে এগোয়, শিগগিরই আমরা দেখতে পাব। আশা করি, এটা হবে দীর্ঘস্থায়ী সমৃদ্ধি ও শান্তির পথে যাত্রা। একমাত্র সময়ই (এবং বুদ্ধিমত্তা) বলবে।’

টুইটে ট্রাম্প

২৬ মে ২০১৮

‘বৈঠক পুনর্বহালে উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে খুব ফলপ্রসূ আলাপ চলছে। বৈঠকটা যদি হয়, তা হলে ১২ জুন সিঙ্গাপুরে থাকব। প্রয়োজন পড়লে এর পরও আলোচনা চালিয়ে যাওয়া হবে।’

টুইটে ট্রাম্প

২৭ মে ২০১৮

‘কিম জং উন এবং আমার মধ্যকার বৈঠকের সবরকম প্রস্তুতি নিতে আমাদের দল উত্তর কোরিয়া পৌঁছেছে। সত্যি বলছি, উত্তর কোরিয়ার উজ্জ্বল সম্ভাবনা রয়েছে বলে আমি বিশ্বাস করি। এই দেশটি একদিন অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক একটা জাতিতে উন্নীত হবে বলে আমি মনে করি। কিম জং উনও আমার সঙ্গে এ বিষয়ে একমত। এটা ঘটবেই।’

টুইটে ট্রাম্প

৫ জুন ২০১৮

‘সিঙ্গাপুরে উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ সম্ভবত বড় কিছুর যাত্রা শুরু। আমরা তা শিগগিরই দেখতে পাব।’

টুইটে ট্রাম্প

 

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে